1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
  2. taife.nur14@gmail.com : taifur nur : taifur nur
শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:৫০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ড. মুহম্মদ শহিদুল্লাহ পদক পেলেন হোমিও চিকিৎসক মাও: আ: ওয়াদুদ নরসিংদী ইনডিপেনডেন্ট কলেজে দোয়া ও অভিভাবক সমাবেশ জীবনে সৎ ও নিষ্ঠাবান হবে- উপাচার্য ড. মো: গিয়াস উদ্দিন তোমরা মানবিক হবে -মেয়র আমজাদ হোসেন বাচ্চু নরসিংদী সিভিল সার্জন অফিসে মাধ্যমিক শিক্ষকদের শিশু স্বাস্থ্য বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত বেলাব উপজেলা আ.লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত নরসিংদীতে আইডিইবি’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন মাধবদীতে কওমি মাদ্রাসার ছাত্রী নিয়ে শিক্ষিকা উধাও মনোহরদীতে ৯ ইউনিয়নে ৪৫১ চেয়ারম্যান প্রার্থীতা চুড়ান্ত, ১ জনের বাতিল আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস উদযাপনের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা সুন্দর সমাজ গঠনে খেলাধুলার বিকল্প নেই -সামসুল আলম ভূঞা রাখিল রায়পুরার নির্বাচনী মাঠে শিবপুর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম ভূঞা রাখিল
শিরোনাম :
ড. মুহম্মদ শহিদুল্লাহ পদক পেলেন হোমিও চিকিৎসক মাও: আ: ওয়াদুদ নরসিংদী ইনডিপেনডেন্ট কলেজে দোয়া ও অভিভাবক সমাবেশ জীবনে সৎ ও নিষ্ঠাবান হবে- উপাচার্য ড. মো: গিয়াস উদ্দিন তোমরা মানবিক হবে -মেয়র আমজাদ হোসেন বাচ্চু নরসিংদী সিভিল সার্জন অফিসে মাধ্যমিক শিক্ষকদের শিশু স্বাস্থ্য বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত বেলাব উপজেলা আ.লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত নরসিংদীতে আইডিইবি’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন মাধবদীতে কওমি মাদ্রাসার ছাত্রী নিয়ে শিক্ষিকা উধাও মনোহরদীতে ৯ ইউনিয়নে ৪৫১ চেয়ারম্যান প্রার্থীতা চুড়ান্ত, ১ জনের বাতিল আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস উদযাপনের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা সুন্দর সমাজ গঠনে খেলাধুলার বিকল্প নেই -সামসুল আলম ভূঞা রাখিল রায়পুরার নির্বাচনী মাঠে শিবপুর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম ভূঞা রাখিল

ঘোমটার নিচে খেমটা নাচের সাংবাদিকতা

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৯ জুলাই, ২০২১
  • ৪০ বার

 

আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী: আমি সাংবাদিকতা করি আজ প্রায় ষাট বছর। জীবনে সাংবাদিকতার বহু চেহারা দেখেছি। সৎ-অসৎ, হিংস্র, সত্য-মিথ্যা, বানোয়াট, উদ্দেশ্যপূর্ণ, চরিত্রহানিকর এবং আরও কত প্রকারের সাংবাদিকতা। সাংবাদিকতার শুরু মানুষকে সঠিক খবর জানানোর জন্য। পরে পাঠকদের খবর জানানোর সঙ্গে পত্রিকার সম্পাদকরা প্রকাশিত খবর সম্পর্কে তাদের নিজস্ব বিশ্নেষণ ও মতামত জানাতে শুরু করেন। এই সংবাদ-বিশ্নেষকদের মধ্য থেকেই কলামিস্ট বা কলাম লেখকদের আবির্ভাব।

প্রথম মহাযুদ্ধের আগেও বিশ্বে কলাম লেখকদের সংখ্যা হাতেগোনা ছিল। এখন সব দেশেই হাজার হাজার প্রতিবেদক ও কলাম লেখকের আবির্ভাব ঘটেছে। তাদের মধ্যে বুদ্ধিজীবীরাও আছেন। সংবাদপত্রের আবির্ভাব ঘটার কাল থেকেই ধনবাদীদের দৃষ্টি এদিকে পড়েছে। তারা সংবাদপত্রের এবং সংবাদ সংস্থার মালিকানা কুক্ষিগত করে এর চরিত্র পরিবর্তন শুরু করে। সাম্রাজ্যবাদীদের স্বার্থরক্ষার জন্য সৎ সাংবাদিকতার গলাটিপে শুরু হয় অসৎ সাংবাদিকতার জয়যাত্রা। সাংবাদিকতাকে কতভাবে ব্যবহার করা যায় তার নমুনা ওপরে উল্লেখ করেছি। ধনবাদীরা, সাম্রাজ্যবাদীরা, বর্ণবাদীরা, ধর্মান্ধ সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী সংবাদপত্র কিনে কলামিস্ট ভাড়া করে তাদের স্বার্থরক্ষার পক্ষে প্রপাগান্ডা চালায়।

আমার সাংবাদিক জীবনেও সাংবাদিকতার বিভিন্ন রূপ সম্পর্কে অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি। ধনতান্ত্রিক বিশ্ব কীভাবে সাংবাদিকতার মতো সৎ ও মহৎ পেশাকে নিজেদের স্বার্থসিদ্ধির জন্য সর্ব প্রকার অমঙ্গলজনক কাজে ব্যবহার করেছে এবং করে তার পরিচয়ও আমি পেয়েছি। নিজে সাংবাদিক বলে আমার ছোটোখাটো দু-একটা অভিজ্ঞতার কথা এখানে লিখতে চাই।

১৯৫০ সালে ঢাকায় আমার সাংবাদিক জীবন শুরু হয় দৈনিক ইনসাফ নামে বংশাল রোড থেকে প্রকাশিত একটি পত্রিকা থেকে। পত্রিকাটি ছিল তৎকালীন স্বৈরাচারী মুসলিম লীগ সরকারের বিরোধী। তার সাংবাদিকরাও ছিলেন তখনকার আদর্শবাদী তরুণরা। ফলে সৎ সাংবাদিকতা দিয়েই আমার সাংবাদিক জীবন শুরু। দৈনিক ইনসাফে আর্থিক সংকট শুরু হওয়ার পর আমি এবং আরও কয়েকজন তরুণ বন্ধু সাংবাদিক ক্ষমতাসীন মুসলিম লীগের মালিকানায় নব প্রকাশিত দৈনিকে যোগ দিই।

এই দৈনিকে কাজ করার সময়েই আমি ঠিক অসৎ নয়, ধূর্তামি অথবা চালাকির সাংবাদিকতার অভিজ্ঞতা লাভ করি। মুসলিম লীগ সরকারের মুখ্যমন্ত্রী তখন নূরুল আমিন। ভাষাসংগ্রামীদের ওপর গুলি চালিয়ে তিনি তখন দেশবাসীর কাছে নিন্দিত। এই সময় আরমানিটোলার মাঠে মওলানা ভাসানীর মুক্তি দাবিতে বিরোধী আওয়ামী লীগ এক জনসভার আয়োজন করে। গুজব রটে গেল এই সভায় শেরেবাংলা ফজলুল হক যোগ দেবেন। মুসলিম লীগ সরকার তাতে ভয় পেল। আমাদের দৈনিকটির ওপর নির্দেশ এলো শেরেবাংলাকে হেয় করে খবর ছাপানোর জন্য।

আমি এবং আবদুল কুদ্দুস নামে দুই রিপোর্টার সম্পাদক কর্তৃক আদিষ্ট হলাম আরমানিটোলা ময়দানে আওয়ামী লীগের জনসভা কভার করার জন্য। মাঠে গিয়ে দেখলাম বিরাট জনসভা। হক সাহেব যোগ দেবেন শুনে আরও লোক জুটেছে। কিন্তু জনসভায় ফজলুল হকের বক্তৃতা শুনে আমরা হতাশ হলাম। মাত্র দু’মিনিট বক্তৃতা দিলেন হক সাহেব। বললেন, ‘নূরুল আমিন, তোমার বয়স কম। বুড়ো মানুষের জেলে থাকা কত কষ্টকর তা জানো না। আমিও রাজনীতি করেছি, তাতে স্বার্থ ছিল। মন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রী হব। কিন্তু মওলানা ভাসানী রাজনীতি করছেন নিঃস্বার্থভাবে। ক্ষমতায় যাওয়ার লোভ তার নেই। নূরুল আমিন, তুমি তাকে ছেড়ে দাও।’ এই কথা বলে হক সাহেব বক্তৃতা শেষ করলেন।

হক সাহেবের এই দু’মিনিটের বক্তৃতা শুনে কী লিখব? হতাশ মনে আমি আর কুদ্দুস দু’জনেই সম্পাদকের কাছে গেলাম। হক সাহেব তার বক্তৃতায় যা বলেছেন তা সম্পাদককে জানিয়ে বললাম, রিপোর্ট করার মতো কিছু নেই। সম্পাদক বললেন, হক সাহেব যা বলেছেন, ওই দু’মিনিটের কথাই লিখে দাও। পরদিন ঘুম থেকে উঠে নিজের কাগজ দেখে নিজেই বিস্ময়ে থ।

আমার দু’লাইনের রিপোর্ট প্রথম পাতায় ব্যানার নিউজ হয়েছে- ‘সারাজীবন স্বার্থের জন্য রাজনীতি করেছি।’ ‘আরমানিটোলা মাঠে ফজলুল হকের স্বীকারোক্তি।’ নিজের লেখা খবর দেখে কাকে কী বলব। সম্পাদকের কক্ষে গেলাম। তিনি বললেন, রিপোর্ট কেমন করে লিখতে হয় শেখো। তুমি মিথ্যা খবর লেখোনি, নিজেদের প্রয়োজনে একটু টুয়িস্ট করেছো মাত্র। নূরুল আমিন সাহেব দেখে খুব খুশি হয়েছেন।

এই সময়ের সাংবাদিকতার আরও বহুদিক সম্পর্কে আমার অভিজ্ঞতা বেড়ে গেছে। আইয়ুব-মোনায়েমের শাসনামলে সিও ডেভদের (সার্কেল অফিসার, উন্নয়ন) ও মৌলিক গণতন্ত্রীদের গ্রামোন্নয়নের নামে কোটি কোটি টাকা লুটপাট চাপা দেওয়ার জন্য কী ধরনের অপসাংবাদিকতা করা হতো তাও চোখের সামনে দেখেছি। স্বাধীনতার আগেই জামায়াতে ইসলামী সাপ্তাহিক ‘জাহানে নও’ নামে একটি পত্রিকা বের করে। একটি ইসলামী দল যে তাদের কাগজে কীভাবে ডাহা মিথ্যা প্রচার করে তা দেখে বিস্মিত হয়েছি। ‘দিনাজপুরে তওহিদি জনতা মওলানা ভাসানীর সভা লন্ডভন্ড করে দিয়েছে’ কিংবা ‘ফরিদপুরে জনতার বিক্ষোভে জনসভা থেকে শেখ মুজিবের পলায়ন’, এগুলো ছিল ডাহা মিথ্যা। মিথ্যাকে সত্যের সঙ্গে মিশ্রিত করে সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য অনেক কলাম লিখেছেন একশ্রেণির কলামিস্ট। আমাদের শ্রদ্ধেয় বুদ্ধিজীবী অজিত গুহ, মুনীর চৌধুরী ও অধ্যাপক আবদুর রাজ্জাককে কাফের, নাস্তিক, ভারতের দালাল ইত্যাদি প্রমাণ করার জন্য অনেক বুদ্ধিজীবী কলামের পর কলাম লিখেছেন। স্বাধীনতার পর সংবাদ প্রচার ও কলাম লেখায় দৈনিক দিনকাল ও দৈনিক সংগ্রামের মিথ্যাচার সব সীমা ছাড়িয়ে ছিল।

এই ধরনের মিথ্যাচার বিলেতে করে ডেইলি মেইল। উগ্র বর্ণবাদী পত্রিকা। কালো এবং বাদামি বহিরাগতদের বিরুদ্ধে নিত্যনতুন মিথ্যা খবর প্রচার করে। লন্ডনে বর্ণবাদী হাঙ্গামা বাধানোর রেকর্ডও ডেইলি মেইলের রয়েছে। টাইমস, টেলিগ্রাফ পত্রিকা বড় বড় কলামিস্ট ভাড়া করে রেখেছে, যারা বিগ বিজনেসের স্বার্থ রক্ষার জন্য দিনকে রাত বানিয়ে লম্বা লম্বা কলাম লেখেন। ইরাকের প্রেসিডেন্টকে হিটলারের সঙ্গে তুলনা করেন। তার হাতে যে বিশ্ব ধ্বংসের মারণাস্ত্র আছে- বুশের এই মিথ্যাচারের পক্ষে তারা কলাম লিখেছেন। পশ্চিমা ষড়যন্ত্রে গাদ্দাফি নিহত হয়েছেন। এই কলামিস্টরা গণবিপ্লবে তিনি মারা গেছেন বলে দীর্ঘ পাণ্ডিত্যযুক্ত কলাম লেখেন। আমরা কালোটাকাকে সাদা করি। পশ্চিমা জগতের অধিকাংশ মিডিয়া কালো খবরকে চাতুর্যের সঙ্গে সাদা করেন। তাদের কাছ থেকে শিক্ষাগ্রহণ করেছেন আমাদের দেশের একদল সাংবাদিক এবং কলামিস্ট। তারা এখন নতুন কৌশল ও পাণ্ডিত্যের সঙ্গে কালোকে সাদা করার বিদ্যা আয়ত্ত করেছেন।

ধরুন বাংলাদেশে এটা আমের মৌসুম। এ সময় আম নিয়ে লিখলে বা তার সঙ্গে একটু রাজনীতি জড়ালে কারোই মনে হবে না এটা আওয়ামী লীগবিরোধী একটা সূক্ষ্ণ প্রচার। দুধের ভাণ্ডে এক ফোঁটা গোময় মেশানো। উপসম্পাদকীয় ‘উপমহাদেশে আম কূটনীতির ফলন ভালো নয়।’ নিরপেক্ষ পত্রিকার কলামটি অত্যন্ত আগ্রহ নিয়ে আমি পড়তে শুরু করলাম। মজার মজার এবং আমার জানা-অজানা তথ্য আছে। মনে হয় কলামিস্ট অনেক গবেষণা করে লেখাটা লিখেছেন। কবে দাক্ষিণাত্যের গভর্নর হিসেবে পিতা শাহজাহানের দরবারে আম না পাঠানোর দরুন আওরঙ্গজেব বন্দি হয়েছিলেন। পাকিস্তানের সেনানায়ক জেনারেল জিয়াউল হক শ্রীলঙ্কার শ্রীমাভোকে আম পাঠিয়েছিলেন, তিনি তা ফেরত দিয়েছিলেন এসব গালগল্প। সেই ফাঁকে তিনি পাঠকদের জ্ঞানদান করেছেন যে অস্ট্রেলিয়ায় ফল বা ফলজাতীয় কোনো জিনিস রপ্তানি করা যায় না।

পড়তে পড়তে ভেবেছিলাম লেখাটা আম নিয়ে রচনা। স্কুলে আমরা গরু, দুধ, আম-জাম নিয়ে রচনা লিখেছি। কিন্তু আম নিয়ে এই রচনা পড়তে গিয়ে চোখ স্থির হয়ে গেল। লেখকের আসল উদ্দেশ্য ধরা পড়ে গেল। শেখ হাসিনা যে ভারতের নেতাদের আম উপহার পাঠিয়েছেন এবং পাঠিয়েও ভারতের মন গলাতে পারেননি এবং ভারত চুক্তিমতো করোনার ভ্যাকসিন দেয়নি এটা বলার জন্য এত দীর্ঘ আম উপাখ্যান। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে শেখ হাসিনা আম পাঠিয়েছিলেন, সে কথাও কলামিস্ট তার উপাখ্যানে উল্লেখ করেছেন। কিন্তু শেখ হাসিনা যে ব্রিটেনের রানীকেও আম পাঠিয়েছিলেন এবং রানী সেই আম খেয়ে তৃপ্ত হয়ে আরও আম চেয়েছিলেন, সে খবরটা লেখেননি।

ছোটবেলা থেকেই শেখ হাসিনার উপহার দেওয়ার অভ্যাস। প্রধানমন্ত্রী হয়েও তিনি বন্ধুদেশের নেতাদের বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ ফল আম উপহার দিয়েছেন। এর ভেতর কূটনীতি থাকলে তিনি একই সঙ্গে নরেন্দ্র মোদি এবং সোনিয়া গান্ধীকে আম পাঠাতেন না। এটা কূটনীতি হয়ে থাকলে সেই কূটনীতিও সফল। পাকিস্তানের ভুট্টোর পাঠানো আমের মতো কোনো দেশ তা ফেরত পাঠায়নি।

ভারত চুক্তিবদ্ধ হয়েও বাংলাদেশকে ভ্যাকসিন দেয়নি কে বলেছে? দেয়নি এবং দিতে পারেনি কথা দু’টোর মধ্যে বিরাট পার্থক্য। ভারত যখন বাংলাদেশকে ভ্যাকসিন দিতে পেরেছে, তখন চুক্তির বাইরেও উপহার হিসেবে বাংলাদেশকে ভ্যাকসিন দিয়েছে। পরে যখন ভারত বিশাল করোনা হামলার মুখে নিজের প্রয়োজন মেটাতে পারছিল না, তখন আর বাংলাদেশকে তাদের তৈরি ভ্যাকসিন দিতে পারেনি। ব্রিটেনকেও ভারতের যে ভ্যাকসিন দেওয়ার কথা ছিল তা দিতে পারেনি। এখানে চুক্তিভঙ্গের কোনো বিষয়ই নেই।

কলামিস্ট আম্রকূটনীতি ব্যর্থ হয়েছে বলে প্রমাণ করতে চেয়ে ‘নিরপেক্ষ প্রভুদের’ খুশি করতে চেয়েছেন। সম্প্রতি অতিবৃষ্টির জন্য রংপুর তলিয়ে গিয়েছিল। তার সঙ্গে আম উপহার পাঠানোর সম্পর্ক কী? তার সঙ্গে তিনি ইঙ্গিত করতে চেয়েছেন, শেখ হাসিনা আম দিয়েও ভারতকে দিয়ে তিস্তা চুক্তি করতে পারেননি। ‘নিরপেক্ষ’ কলামিস্ট একটু অপেক্ষা করুন। বিএনপি-জামায়াত সরকার তো ভারতের কাছ থেকে গঙ্গার এক ফোঁটা জলও আনতে পারেনি। এখন গঙ্গাচুক্তি হয়েছে। স্থলসীমান্ত চিহ্নিত হয়েছে। ছিটমহল সমস্যা সমাধানের পথে। সমুদ্রসীমা নির্ধারিত হয়েছে। তিস্তার পানি, তাও কেউ যদি আনতে পারবে, হাসিনা সরকার পারবে। ভারতবিরোধী স্থূল অথবা সূক্ষ্ণ প্রচার চালিয়ে নয়, ভারতের সঙ্গে মৈত্রী অক্ষুণ্ণ রেখেই তা সম্ভব হবে। ‘নিরপেক্ষ’ কলামিস্টের প্রভুরা শুধু বিরোধ উস্কাতেই পারেন, সমাধান করতে পারেন না।

নিরপেক্ষ কলামিস্ট নিজেই স্বীকার করেছেন, পাকিস্তানের পাঠানো আম ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র, চীনসহ কয়েকটি দেশ গ্রহণ করতে অসম্মতি জানিয়েছে। শেখ হাসিনার যে আম উপহার দেওয়াকে ‘নিরপেক্ষ’ কূটনীতিক পাকিস্তানের কূটনৈতিক ব্যর্থতার সঙ্গে তুলনা করেন, তার সত্যতা কোথায়? তিনি আবার চেষ্টা করেছেন পাকিস্তানের আম কূটনীতির ব্যর্থতাকে ভারতের প্রচার বলেও ঢাকতে।

এই চোরা চাহনির সাংবাদিকতা ছাড়াও আরও নানা ধরনের বিভ্রান্তিকর সাংবাদিকতার কথা জানি। তা নিয়ে পরে আলোচনা করব। আমাকে লন্ডনের এক শ্বেতাঙ্গিনী বলেছিলেন, ‘তোমাদের এশিয়ানদের দোষ এই যে, তোমরা সোজা কোনো নারীর চোখের দিকে তাকাতে পারো না। প্রথমেই পায়ের দিকে তাকাও।’ আমার মনে হয়, আমাদের সাংবাদিকদের মধ্যেও একটা শ্রেণি আছে, যারা আওয়ামী লীগের সমালোচক সেজে রুজি-রুটির ব্যবস্থা করতে চান। তারা সোজাসুজি আওয়ামী লীগের সমালোচনা করতে পারেন। তা নয়, ঘোমটার নিচে খেমটার নাচ দেখান। তাতে আমাদের মতো পাঠকদের হাসি পায়। তবে কষ্টকর হাসি।

[লন্ডন, ১৪ জুলাই, বুধবার, ২০২১] সূত্র: সমকাল

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..