1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
  2. taife.nur14@gmail.com : taifur nur : taifur nur
মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর ২০২১, ১০:৪১ অপরাহ্ন

খিদিরপুর কলেজ : অনেক শিখা পুড়ে তবে এমন প্রদীপ জ্বলে

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৫ জুলাই, ২০২১
  • ৩৬ বার

আতাউর রহমান ফারুক, মনোহরদী থেকে: নরসিংদীর মনোহরদী উপজেলা সদর থেকে ১৫ কিলোমিটার দূরে ৩৫ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘খিদিরপুর কলেজ’। আর এ কলেজ গড়ার পেছনে ১৫ থেকে ২০টি গ্রামের সাধারণ মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত সহযোগিতা এবং অবদান ছিল উল্লেখ করার মতো। এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি অল্প সময়ের ব্যবধানেই অনন্য একটি কলেজ হিসেবে আশেপাশের ৪-৫ জেলাজুড়ে ব্যাপক সুনাম ও সুখ্যাতি অর্জনে সক্ষম হয়। আর এজন্য সর্বাগ্রে আসে আনোয়ার সাহেব নামে খ্যাত এলাকার প্রচণ্ড সাংগঠনিক দক্ষতা সম্পন্ন এক প্রয়াত নেতৃত্বের। তিনি গত হয়েছেন প্রায় আড়াই যুগ আগে। তবু এখনো এলাকায় তিনি আকাশচুম্বী সম্মান এবং প্রবাদতুল্য খ্যাতির অধিকারী ব্যক্তিত্ব হিসেবে গণ্য হন।
সরেজমিনে খিদিরপুর এলাকায় গিয়ে জানা যায়, খিদিরপুর কলেজের প্রতিষ্ঠাতা মো. আনোয়ার হোসেন নিজে বিশাল কোনো ধনাঢ্য ব্যক্তিত্ব ছিলেন না। ছিলেন একটি বেসরকারি কোম্পানির মধ্যম সারির একজন কর্মকর্তা মাত্র। কিন্তু তার মধ্যে ব্যক্তিত্ব, নেতৃত্ব এবং মানুষকে প্রভাবিত করার মোহনীয় যোগ্যতা ছিল সবকিছু ছাড়িয়ে। তার সুদক্ষ নেতৃত্বে মনোহরদীর অজপাড়া গাঁ খিদিরপুরের মতো একটি গণ্ডগ্রামে বিখ্যাত একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠে। সে সময় তার এ কলেজ গড়ার আন্দোলন আশেপাশের ১৫-২০টি গ্রামসহ আশেপাশে ব্যাপক সাড়া জাগায়।
প্রায় পঁয়ত্রিশ বছর আগে ১৯৮৭ সালে খিদিরপুরে উন্নত ও আদর্শ মানের একটি কলেজ স্থাপনের স্বপ্ন দেখতে থাকেন আনোয়ার হোসেন। তখন প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরত্বের ভেতর মনোহরদী ডিগ্রি কলেজ ছাড়া এ তল্লাটে আর কোনো কলেজের অস্তিত্ব ছিল না। ফলে এলাকার দরিদ্র ও পশ্চাদপদ পরিবারের সন্তানদের কলেজে পড়াশোনা ছিলো বেশ কঠিন। এ পরিস্থিতিতে কাছের দু-একজনের কাছে কলেজ গড়ার কথাটা জানালে তার কথা উড়িয়ে দেন তারা। উপজেলা সদর থেকে এতদূরে খিদিরপুরের মতো একটি গণ্ডগ্রামে কোনভাবেই একটি কলেজ করা সম্ভব নয়। লাগবে বিস্তর জায়গা-জমি আর কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা। তাছাড়া একটি পরিপূর্ণ কলেজ প্রতিষ্ঠা করতে আরো কতো কি জোগান দিতে হয়! মুখের কথা, নাকি ছেলে খেলা এসব?
এতো কিছু সত্ত্বেও দমে যাবার পাত্র নন আনোয়ার সাহেব। তার উদ্যোগে ১৯৮৭ সালের স্বাধীনতার মাসের একদিন আশেপাশের ৬/৭টি গ্রামের ১৪ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে খিদিরপুর হাই স্কুলে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। খালিয়াবাইদ গ্রামের আব্দুস সাত্তার এতে সভাপতিত্ব করেন। সেখান থেকে একটি কলেজ প্রতিষ্ঠার জন্য সকলের আকুণ্ঠ সমর্থন লাভ করেন আনোয়ার সাহেব। তারপর থেকেই কাজে নামা।
সোনালী ব্যাংকের তখনকার এমডি মনোহরদীর জীবকায়া গ্রামের প্রয়াত আব্দুর রশীদ কলেজের জন্য নগদ ৫ লাখ টাকা দেন। আনোয়ার সাহেবের বড় ভাই মনতলা গ্রামের কালু দেন ৩৫ শতক জমি। সেই জমিতেই কলেজের ভিত্তি স্থাপিত হয় প্রথমে। পরে অবশ্য সংলগ্ন অন্য জমিতে হয় কলেজ।
এলাকার বিজন নাগ, উৎপল নাগসহ আরো কয়েকজন পরে আরো জমি লিখে দেন কলেজের নামে। আনোয়ার সাহেব নিজেও বিভিন্ন সময় কলেজে নগদ দেন ৭/৮ লাখ টাকা। দানে জড়িত হন আরো অনেকে। এ পরিস্থিতিতে খিদিরপুর, মনতলা, নয়াপাড়া, চর আহাম্মদপুর, বীর আহাম্মদপুর, ডোমনমারা, জীবকায়া, রামপুর, বীরগাঁও, নরেন্দ্রপুর, শরীফপুর, সাগরদী, নরেন্দ্রপুর, চালাকচরসহ ১৫/২০টি গ্রামের এক বিস্তীর্ণ এলাকায় কলেজ গড়ার উদ্দীপনা ছড়িয়ে পড়ে। সে উদ্দীপনা আড়িয়াল খাঁ নদীর সীমানা পেরিয়ে পৌঁছে যায় পার্শ্ববর্তী কটিয়াদী, পাকুন্দিয়ারও কিছু অংশে।
কলেজ প্রতিষ্ঠাকর্মে যুক্ত চর আহাম্মদপুর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা ন.ম মোস্তফা এক আলাপচারিতায় জানান, আনোয়ার সাহেবের সুদক্ষ নেতৃত্ব ও সীমাহীন শ্রমে একদিন প্রতিষ্ঠিত হলো খিদিরপুর কলেজ। প্রথমে ক্লাশ শুরু হয় খিদিরপুর হাই স্কুলের কয়েকটি কক্ষ নিয়ে। প্রথম অধ্যক্ষ হন মানিকগন্জের আব্দুল বারেক মোল্লা। এলাকার সদ্য বিশ্ববিদ্যালয় পাশ যুবক জিয়াউল আহসান সেলিম আনোয়ার সাহেবের নির্দেশে যোগ দেন তাতে রসায়নের শিক্ষক হিসেবে। পরে তিনি ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হন। সেই
সময়ের স্মৃতিচারণ করে তিনি জানান, মাত্র ৫শ’ থেকে এক হাজার টাকা বেতনের চাকুরি ছিলো সেটি। তাও আবার অনিয়মিত। আনোয়ার সাহেব যখন যে রকম পারতেন ব্যবস্থা করতেন। এভাবেই চলতে চলতে একসময় কলেজ এক অস্তিত্ব সঙ্কটের মধ্যে পড়ে। সে সময়ের অধ্যক্ষ ইসমাইল হোসেন ও তার সক্রিয় ভূমিকায় ১৯৯৩ সালে কলেজটি এমপিওভুক্ত হয়ে সে সঙ্কট কাটিয়ে ওঠে।
খিদিরপুর হাই স্কুলের সে সময়কার সপ্তম শ্রেণির ছাত্র (বর্তমানে তিনি একই স্কুলের সহকারী শিক্ষক) মো. সাফফাত আলম খোকন তখনকার এক ঘটনায় আনোয়ার সাহেবের মোহময় ব্যক্তিত্বের একটি উদাহরণ তুলে ধরেন। খিদিরপুরে বসে আলাপকালে তিনি জানান, প্রতিষ্ঠাকালের কয়েক বছর পর কলেজের একটি ভবন নির্মাণের জন্য বিশাল কয়েকটি ইটের স্তুপ অন্যত্র স্থানান্তরের প্রয়োজন পড়ে। আনোয়ার সাহেব সংলগ্ন খিদিরপুর হাই স্কুলে এসে ক্লাশে ক্লাশে এক উদ্দীপনাময় বক্তব্যে এ গৌরবময় কাজে স্কুলছাত্রদের অংশগ্রহণের আহ্বান জানান। ব্যস! আর দেখতে হলো না। ওইদিনই স্কুলের শ’ শ’ ছাত্র ইট স্থানান্তরের কাজে নেমে পড়ে। তাদের দেখাদেখি এলাকার সাধারণ মানুষসহ বাজারের ব্যবসায়ীরাও স্বতঃস্ফূর্তভাবে এ কাজে অংশ নেন। ফলে ২৪ হাজার ইটের বিশাল স্তুপ মাত্র একদিনেই অন্যত্র স্থানান্তর হয়ে যায়।
একই গ্রামের আনোয়ার সাহেবের ঘনিষ্ঠ সহযোগী ইছামুদ্দিন মাস্টার (৯১) সেই সময়ের কথাপ্রসঙ্গে বলেন, আমাদের চারজনের একটি গ্রুপ ছিলো। এলাকার মানুষ রস করে বলতো- ৪ খলিফা। আনোয়ার সাহেব, আমি, মনতলার মান্নান মাস্টার ও আহাম্মদ হোসেন। এই ৪ জনের মধ্যে একমাত্র আমিই জীবিত, অন্যরা প্রয়াত। আমরা সবাই ছিলাম আনোয়ার সাহেবের কলেজ গড়ার সার্বক্ষণিক সহযোগী। তিনি জানান কলেজ প্রতিষ্ঠাকালে আনোয়ার সাহেব ঢাকা থেকে এসে প্রায়ই মনতলা গ্রামের নিজ বাড়িতেও যেতে পারতেন না। কলেজের কাজে ব্যস্ত থেকে ছুটি শেষে আবার কলেজ থেকেই ঢাকায় ফিরে যেতেন। কলেজের ভেতর তার থাকার ছোট্ট একটা কাঁচা ঘর ছিলো। পরবর্তীতে খুবই স্বল্প সময়ের ভেতর সুশিক্ষার জন্য আশেপাশের ৫/১০ জেলায় এ কলেজের সুখ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে। প্রতিষ্ঠার স্বল্প সময়ের মধ্যেই কলেজটি একাধিকবার জেলার সেরা কলেজের তকমা লাভ করে। কলেজের তৎকালীন ইংরেজি শিক্ষক ইসমাইল হোসেন জেলার সেরা শিক্ষকের গৌরব লাভ করেন। ফলে নরসিংদী, কিশোরগন্জ,গাজীপুর জেলাসহ এক বিস্তর গণ্ডিতে কলেজের সুনাম ছড়িয়ে যায়। কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ জিয়াউল আহসান সেলিম জানান, পরিস্থিতি এমনই দাঁড়ায় যে, সুনামগঞ্জ- সিলেট থেকে পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ছাত্র- ছাত্রী এ কলেজে লেখাপড়া করতে ছুটে আসে।
কালের বিবর্তনে কলেজের ভিটি কাঁচা, টিনের চালা, টিনের বেড়ার সেই ঘর লুপ্ত হয়। তার জায়গায় স্থান করে নেয় সরকারি- বেসরকারি দান-অনুদানের আজকের বিশাল সুদৃশ্য তিনতলা একাডেমিক ও প্রশাসনিক ভবন। হয়েছে শিক্ষার্থীদের আবাসিক ভবন। ৩৫ শতক জমি দিয়ে শুরু করা কলেজের মালিকানায় আজ রয়েছে প্রায় ২০ বিঘা জমি। খিদিরপুর কলেজের যা কিছু, আজ তার সর্বত্রই আনোয়ার সাহেবের অক্লন্ত শ্রম ত্যাগ- তিতিক্ষা, এলাকাবাসীর সীমাহীন ভালোবাসার দান-অবদানের গৌরবোজ্জ্বল স্বাক্ষ্য বিরাজ করছে। খিদিরপুর কলেজ আজ জ্ঞানের মশাল জ্বালিয়ে চারদিকে জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে দিচ্ছে দূর থেকে দূরান্তে। আর এসবের ভেতর দিয়ে কলেজ প্রতিষ্ঠায় নেতৃত্ব দানকারী প্রয়াত আনোয়ার সাহেবসহ এতে জড়িত জীবিত প্রয়াত ব্যক্তিবর্গের অনন্য কালজয়ী অবদানের স্বীকৃতি ঘোষিত হচ্ছে সর্বক্ষণ অবিরত।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..