1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
  2. taife.nur14@gmail.com : taifur nur : taifur nur
Title :
নরসিংদী রেল স্টেশনে তরুণী লাঞ্চিতের ঘটনায় অভিযোগ করেনি ভুক্তভোগী, ছায়া তদন্তে জেলার বিভিন্ন সংস্থা নরসিংদীতে বাংলা টিভির বর্ষপূতি উদ্যাপন ঈদ, পূজা-পার্বণ আমাদের সার্বজনীন উৎসবে পরিণত হয়েছে: পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান বিট পুলিশিং বাড়ি বাড়ি, নিরাপদ সমাজ গড়ি আজ আন্তর্জাতিক নার্স দিবস শিবপুরে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের টিম পুরস্কার বিতরণের মধ্য দিয়ে নরসিংদীতে ২ দিনব্যাপী বিজ্ঞান মেলা সমাপ্ত নরসিংদীতে রমজান উপলক্ষে মহাসড়কে যানজট ও দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সভা অনুষ্ঠিত পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষ্যে বিশেষ প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত
Title :
নরসিংদী রেল স্টেশনে তরুণী লাঞ্চিতের ঘটনায় অভিযোগ করেনি ভুক্তভোগী, ছায়া তদন্তে জেলার বিভিন্ন সংস্থা নরসিংদীতে বাংলা টিভির বর্ষপূতি উদ্যাপন ঈদ, পূজা-পার্বণ আমাদের সার্বজনীন উৎসবে পরিণত হয়েছে: পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান বিট পুলিশিং বাড়ি বাড়ি, নিরাপদ সমাজ গড়ি আজ আন্তর্জাতিক নার্স দিবস শিবপুরে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের টিম পুরস্কার বিতরণের মধ্য দিয়ে নরসিংদীতে ২ দিনব্যাপী বিজ্ঞান মেলা সমাপ্ত নরসিংদীতে রমজান উপলক্ষে মহাসড়কে যানজট ও দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সভা অনুষ্ঠিত পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষ্যে বিশেষ প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত

ঝাড়তলায় ২৭ মসলার চা, খ্যাতি ছড়িয়েছে বহুদূর

Reporter Name
  • Update Time : Thursday, August 26, 2021
  • 65 Time View

আতাউর রহমান ফারুক: আদা, রশুন, মরিচ, এলাচী, লবঙ্গ, পাঁচফোঁড়ন, কালোজিরা, বহেরা, আমলকি, হরিতকি, জয়ত্রী, জয়ফল। ওষুধি ও রান্নার এরকম ২৭টি মসলা যোগে বানানো চা। মিলবে এক ঝাড়তলায়, চারপাশে ঘুটঘুটে অন্ধকারে, টিমটিমে এক আলোর ভেতর। এ চায়ের খ্যাতি পরিচিতি এখন মনোহরদীর গ্রাম, শহর ছাড়িয়ে পার্শ্ববর্তী কয়েক উপজেলা ও জেলা অবধি।
বুধবার (২৫আগষ্ট) শেষ বিকেলের পড়ন্ত বেলায় হাজির হওয়া গেলো মনোহরদী উপজেলার পশ্চিম চরমান্দালিয়া গ্রামের হালে খ্যাতি লাভ করা ঝাড়তলা এলাকায়। অত্যন্ত সাধারন একটি চায়ের দোকান। টিনের একচালার নীচে সুপোরী গাছের ফালির দু’তিনটে বেঞ্চ। আছে দু’তিনটে প্লাস্টিকের চেয়ারও। একধারে লাকড়ির চুলা। তাতে কেটলীতে ফুটছে লিকার। মাটিতে ছালা বিছিয়ে নানা রকম ডিবে কৌটা ইত্যাদি সারি সারি সাজিয়ে রাখা। এই হচ্ছে ২৭ মসলা খ্যাত ঝাড়তলার চায়ের দোকান। দীর্ঘদেহী, হৃষ্টপুষ্ট, চা দোকানী ফরিদ উদ্দীন (৫০)। কথা হচ্ছিলো তার সাথে কাজের ফাঁকে ফাঁকে। কয়েক বছর আগে বীরগাঁও চৌরাস্তা বাজারে দোকান ছিলো তার। ২৭ মসলার ব্যতিক্রমী চায়ের আকর্ষনে জমজমাট ব্যবসা শুরু হতেই লোক লাগলো পেছনে। রাতের আঁধারে ঘরের চালা ফেলা দেয়া, দোকানে প্রাকৃতিক কার্যাদি সম্পাদন করা ইত্যাদি নানাভাবে অতিষ্ঠ করে তুললো ফরিদকে। শেষে রমরমা চা বেচায় ইতি দিয়ে বাড়ী ফিরতে হলো তাকে। পাক্কা ২বছর বাড়ীতে কাটিয়ে অবশেষে এখানে দোকান করলেন তিনি। ঘন বাঁশঝাড় ও ঝোপ জঙ্গলে আচ্ছন্ন জায়গা তখন এটি। দিনেমানেও এ পথে মানুষ চলতে ভয় পায়। ফরিদ জানান, প্রায় আড়াই বছর আগে চাচাতো ভাইয়ের বাঁশঝাড় উপড়ে ফেলে, ঝোঁপ জঙ্গল সাফ করে এখানে এই একচালার নীচে দোকান করেন তিনি। আগের পরিচিতি তো ছিলোই, নতুন করে ২৭ মসলার চায়ের খ্যাতি ছড়িয়ে পড়লো চারদিকে। খুঁজেপেতে খদ্দেরও ছুটে আসতে থাকলো অখ্যাত এলাকার ততোধিক অখ্যাত এই ঝাড়তলার চায়ের দোকানে। ফরিদ জানান, প্রতিদিন বিকেল ৫ টার দিকে দোকান শুরু হয়, চলে মধ্যরাত অবধি। ফরিদের দাবী, চালাকচর, কটিয়াদি, মঠখোলা, বটতলা, মাষ্টার বাড়ী, বীরগাঁও, দরগা বাজারের ব্যবসায়ীরাও আসেন এখানে। দোকান বন্ধ করতে অনেক রাত হয় তাতে। এ জন্য কখনো কখনো রাত একটা দুটো পর্যন্ত দোকান খোলা রাখতে হয় তাকে। অনেক দূর দূরান্তের খদ্দের আসেন তার চায়ের আকর্ষণে। আশেপাশের ১০/২০ কিঃমিঃ দূর থেকে তো আসেনই। মাসে দুদিন নারায়ণগঞ্জ থেকেও তার মসলাদার চা খেতে খদ্দের আসেন বলে জানান তিনি। কটিয়াদীর নোয়াকান্দী থেকে চা খেতে এসেছেন জামাল সহ ৪/৫ জন। পাকুন্দিয়ার মান্দারকান্দী ও বুরুদিয়ার কয়েকজন। তারা চা খেলেন এবং বাড়ীর জন্যও নিলেন পলিব্যাগে করে। তারপর সাথে আনা ইজিবাইকে চলে গেলেন তারা। কৃষ্ণপুর ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার এমদাদও আসেন এখানে চা খেতে। যোগাযোগ করা হলে তিনিও এ কথার সত্যায়ন করলেন। তার দোকানে প্রায় আড়াই ঘন্টা কাল অবস্থানে দেখা যায়, সেখানে একা একা আসছেন খুব কম লোকই। প্রায় সবাই ৪ থেকে ৭/৮ জনের দলে আসছেন-বসছেন, চা খেয়ে, পলিব্যাগে ভওে নিয়ে চলে যাচ্ছেন তারা। গ্রামীন চা দোকানের আড্ডাবাজী নেই এখানে। নেই কোন হৈ হল্লা চেঁচামেচি। কাউকে দীর্ঘ সময় বসে থাকতেও দেখা গেলো না সেখানে। ফরিদ জানান, এ রকমই হয়। তারা আসেন,চা খান,সাথে নেন।চলে যান। তাই বেচাবিক্রি নিয়ে ততো ঝামেলা হয় না তার । কার্তিক অগ্রহায়নে বেচাকেনা বেশী। তখন দৈনিক ৩ হাজার টাকার মতো বিক্রি হয় দোকানে। সামনের সংকীর্ন পাকা রাস্তার ধারে তখন হোন্ডা, ইজিবাইক, সিএনজি, প্রাইভেট কারে জায়গা ধরে না। ফলে দোকান আরো পেছন দিকে সরিয়ে নিয়ে জায়গা করো দিতে হয় তখন। বর্ষায় বেচা বিক্রিতে মন্দা। প্রতি কাপ দশ টাকা করে১৫শ’ ১৮শ’য়ের বেশী বিক্রি উঠে না এখন। দৈনিক দেড় দুশ’ কাপ চা বেচেও ৫/৬শ’ টাকার বেশী লাভ হয় না তাই। ফরিদ জানালেন,দিনের অর্ধেক যায় তার চায়ের মসলা কাটা, বাটা ও পেষায়। স্ত্রীও সাহায্য করেন তাকে। তবে দোকানের সব কাজ একাই করেন তিনি। চারপাশের ঘুটঘুটে অন্ধকারের ভেতর সামান্য টিমটিমে আলোয় তার দোকানে বসে চা পানের অনুভূতিটাই আলাদা! মসলাদার চায়ের স্বাদেও আছে এক ভিন্নতা। ওষুধি গুনের কথা না হয় ছেড়েই দিলাম। সেই সাথে ফরিদের উদ্দীনের টুকটাক গালগল্পও মন্দ লাগে না তখন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category