1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : news post : news post
  3. [email protected] : taifur nur : taifur nur
March 3, 2024, 9:54 pm
সর্বশেষ সংবাদ
রিয়েলিটি শো’র বিচারকের আসনে রাজীব মণি দাস নরসিংদীর আঞ্চলিক শব্দকোষ’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন বেলাব উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে চান মোঃ খোর্শেদ আলম নরসিংদী জেলা পর্যায়ে প্রাথমিক শিক্ষা পদক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত মল্লিকপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক ও শিশুবরণ অনুষ্ঠিত নরসিংদীতে মাসব্যাপী গোল্ডকাপ ব্যাডমিন্টন টুর্ণামেন্টে নরসিংদী পৌরসভা চ্যাম্পিয়ন উপজেলা নির্বাচনে শিবপুরে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা সরব বিএনপি নীরব বেলাবতে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত এক আসামী গ্রেফতার পলাশে জব্দকৃত ভেজাল সার ধ্বংস করলেন কৃষি কর্মকর্তা মনোহরদী উপজেলা প্রেসক্লাবের যাত্রা শুরু সভাপতি কাজী শরিফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আজমিরী সুলতানা

ক্ষুধার কবলে পড়বে ১৩ কোটির বেশি মানুষ : জাতিসংঘ

আন্তর্জাতিক
  • পোস্টের সময় Tuesday, July 14, 2020
  • 363 বার দেখা হয়েছে

আন্তর্জাতিকঃ করোনা মহামারির কারণে এ বছর আরো ১৩ কোটি ২০ লাখ মানুষ চরম ক্ষুধার কবলে পড়বে বলে সতর্ক করেছে জাতিসংঘ। সোমবার এক প্রতিবেদনে সংস্থাটি জানায়, এতে ২০৩০ সালের ক্ষুধামুক্ত পৃথিবী গড়ার লক্ষ্য পূরণ হবে না। এদিকে বিশ্বে করোনার আগের স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে ফিরবে না বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

২০১৯ সালে ক্ষুধার্ত মানুষের সংখ্যা ছিলো ৬৯ কোটি। যা বিশ্ব জনসংখ্যার ৮ দশমিক ৯ ভাগ। যা এর আগের বছরের চেয়ে ১ কোটি বেশি। এসব মানুষের বেশিরভাগই এশিয়া ও আফ্রিকার। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা এফএও’র বার্ষিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনার কারণে গত বছরের চেয়ে এবার নতুন করে ১৩ কোটি ২০ লাখের বেশি মানুষ চরম ক্ষুধায় ভুগবে।

এফএওয়ের প্রধান অর্থনীতিবিদ মেক্সিমো টেরেরো বলেন, ২০৩০ সাল পর্যন্ত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা বা এসডিজি অর্জন করতে পারলেও ৮৪ কোটি মানুষ ক্ষুধায় ভুগবে। তবে করোনার কারণে ৮ থেকে সর্বোচ্চ ১৩ কোটি ২০ লাখ মানুষ নতুন করে চরম ক্ষুধার্থের তালিকায় যুক্ত হবে বলে শঙ্কা করছি আমরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৩শ কোটি মানুষের স্বাস্থ্যকর খাবার কেনার সামর্থ্য নেই। এটা অপুষ্টিতে ভোগার অন্যতম কারণ। জনগণকে পুষ্টিকর খাবার সরবরাহ করতে সরকারগুলোকে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ।

এফএওয়ের প্রধান অর্থনীতিবিদ মেক্সিমো টেরেরো আরো বলেন, এসডিজি টু-এর মূল বিষয়, স্বাস্থ্যকর খাবারের মান খেয়াল রাখলে অপুষ্টি কমানো সম্ভব। তবে স্বাস্থ্যকর খাবার ব্যয়বহুল। এদিকে করোনার আগে মানুষ যে স্বাভাবিক জীবনযাপন করেছে, অদূর ভবিষ্যতে তেমন দিন ফিরে আসার কোনও সম্ভাবনা দেখছে না বিশ্ব সাস্থ্য সংস্থা।

বিশ্ব সাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক টেড্রোস আডানোম গেব্রিয়াসিস বলেন, আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই অদূর ভবিষ্যতে আগের স্বাভাবিক অবস্থায় জীবন ফিরে আসার কোন সম্ভাবনা নেই। তবে এই পরিস্থিতির একটা রোডম্যাপ রয়েছে যেখানে আমরা এই রোগ নিয়ন্ত্রণ করতে পারি এবং জীবনযাত্রা চালিয়ে যেতে পারি।

করোনা মোকাবিলায় বিশ্বের অনেক দেশ ভুল পথ অনুসরণ করছে বলেও জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে না মানলে পরিস্থিতি আরো খারাপের আশঙ্কা করেন সংস্থাটির মহাপরিচালক।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন