1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
  2. taife.nur14@gmail.com : taifur nur : taifur nur
রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১২:০৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
র‌্যাব-১১ এর অভিযানে ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। রায়পুরায় একশো জন পাট চাষী নিলো প্রশিক্ষণ পল্লী বিদ্যুতের লাইনম্যানরা সংবর্ধনা পাওয়ার যোগ্য -সামসুল আলম রাখিল মনোহরদীতে আগুনে পুড়ে ছাই ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর বাড়ি শিবপুরে দুর্গোৎসবে শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষায় সশস্ত্র অবস্থায় টহল দিচ্ছে আনসার বাহিনী নরসিংদীতে বিশ্ব শিক্ষক দিবস পালিত নরসিংদীতে আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রমশন দিবস উদযাপন দুর্যোগ মোকাবেলায় সচেতনতা ও প্রস্তুতির বিকল্প নেই -নরসিংদীর জেলা প্রশাসক ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারের নরসিংদী সফর জেলার দপ্তর প্রধানগনের সাথে মতবিনিময়, উন্নয়ন কার্যক্রমের খোঁজ খবর, দিকনির্দেশান প্রদান জিরো যখন হিরো দারিদ্রতায় পিষ্ট কবি ও সাহিত্যিক দয়াল ফারুক
শিরোনাম :
র‌্যাব-১১ এর অভিযানে ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। রায়পুরায় একশো জন পাট চাষী নিলো প্রশিক্ষণ পল্লী বিদ্যুতের লাইনম্যানরা সংবর্ধনা পাওয়ার যোগ্য -সামসুল আলম রাখিল মনোহরদীতে আগুনে পুড়ে ছাই ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর বাড়ি শিবপুরে দুর্গোৎসবে শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষায় সশস্ত্র অবস্থায় টহল দিচ্ছে আনসার বাহিনী নরসিংদীতে বিশ্ব শিক্ষক দিবস পালিত নরসিংদীতে আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রমশন দিবস উদযাপন দুর্যোগ মোকাবেলায় সচেতনতা ও প্রস্তুতির বিকল্প নেই -নরসিংদীর জেলা প্রশাসক ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারের নরসিংদী সফর জেলার দপ্তর প্রধানগনের সাথে মতবিনিময়, উন্নয়ন কার্যক্রমের খোঁজ খবর, দিকনির্দেশান প্রদান জিরো যখন হিরো দারিদ্রতায় পিষ্ট কবি ও সাহিত্যিক দয়াল ফারুক

মেঘনাপারের বাঁশিওয়ালা সরকার আবুল কালাম:

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৬ বার

 

॥ প্রফেসর কালাম মাহমুদ ॥

মেঘনাপারের বাঁশিওয়ালা, নরসিংদীর সাহিত্যাঙ্গনের পরিচিত নাম, মাটি-মানুষের ‘শেকড়সন্ধানী’ লেখক সরকার আবুল কালাম পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে গেলেন। গত ৩০.৮.২১ তারিখ সোমবার নরসিংদীর সাটিরপাড়াস্থ নিজস্ব বাসভবনে তিনি ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে বয়েস হয়েছিল ৭৫ বছর। তিনি দীর্ঘদিন থেকে ডায়াবেটিস ও চোখের সমস্যাসহ নানা রোগে ভুগছিলেন। হঠাৎ তাঁর শারীরিক অবস্থার বিপর্যয় ঘটলে তিনি মৃত্যু বরণ করেন। নরসিংদী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে তাঁর জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। জানাজাশেষে নরসিংদী সদর উপজেলার করিমপুর ইউনিয়নের বাউশিয়া গ্রামের পারিবারিক কবরস্থানে তাঁর লাশ দাফন করা হয়।
লেখক-গবেষক সরকার আবুল কালাম ১৯৪৬ সনের ২৮ জানুয়ারি নরসিংদী সদর উপজেলার করিমপুর ইউনিয়নের বাউশিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। মৃত্যুকালে তিনি চার সন্তান ও স্ত্রীসহ অগণিত শুভানুধ্যায়ী ও আত্মীয় পরিজন রেখে গেছেন। তাঁর একমাত্র পুত্র জুলফিকার আজাদ কাতারে একটি কলেজে উপাধ্যক্ষ পদে কর্মরত। স্ত্রী রুবি আক্তার একজন শিক্ষয়িত্রী। তিন মেয়ের নাম- নাজনীন আজাদ, নাসরিন আজাদ ও শারমিন আজাদ। নাজনীন আজাদ যুক্তরাজ্যে প্রবাসী। লতা ও মুক্তা সঙ্গীতশিল্পী। সনদপত্র অনুসারে তাঁর প্রকৃত নাম-আবুল কালাম আজাদ। জীবনের নানা সময় নানাপেশায় কিছুটা সময় ব্যয় করলেও তিনি জীবনের অধিকাংশ সময় পার করেছেন নরসিংদী সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষকতার দায়িত্বে নিযুক্ত থেকে। নানা পেশার আর্থিক সুযোগ তাঁকে প্রলুব্ধ করেনি। শিক্ষকতাকেই জীবনের মহানব্রত হিসেবে গ্রহণ করেন তিনি। শিক্ষকতার অনুষঙ্গে সারাজীবন নরসিংদীর ইতিহাস, শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি-ঐতিহ্য নিয়ে গবেষণা করেন। নরসিংদীর জনগণ তাঁকে ‘শেকড়সন্ধানী লেখক’/‘নরসিংদীর কাদাখোঁচা পাখি’, ‘আলোর কণা’ আখ্যা দিয়েছে। তাঁর বাঁশির সুরে নরসিংদীর সাধারণ মানুষের শাশ^তকালের মর্মবাণী ধ্বনিত হয়েছে। হাজার বছর ধরে নরসিংদীর জনজীবন তথা বাঙালির ইতিহাস ও ঐতিহ্যের যে ধারা বহমান তিনি তার রূপ উন্মোচন করেছেন এবং প্রত্যন্ত এলাকায় অযতেœ ছড়িয়ে থাকা লোকজীবনের রতœরাজি সংগ্রহ করে আমাদের সামনে উপস্থিত করেছেন।
সরকার আবুল কালাম তাঁর গবেষণা ও লেখালেখির জন্য বিশেষ কৃতিত্ব প্রদর্শন করেন এবং সরকারি ও বেসরকারিভাবে নানা সম্মাননা প্রাপ্ত হন। নরসিংদী জেলাপ্রশাসন ও জেলা শিল্পকলা একাডেমি সাহিত্য-সংস্কৃতি ক্ষেত্রে অবদানের জন্য তাঁকে সম্মাননা প্রদান করে। তিনি ২০১৪ সনে ‘আলাউদ্দিন আল আজাদ’ পুরস্কার লাভ করেন। আলাউদ্দিন আল আজাদের স্ত্রী জামিলা আল আজাদ তাঁর হাতে পুরস্কার তুলে দেন। এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম। তাছাড়াও আরো অনÍত ১০টি পুরস্কারে ভূষিত হন সরকার আবুল কালাম।
আশৈশব সাহিত্যের প্রতি ছিল তাঁর অন্তরের টান। প্রমথনাথ বিশী রচিত ‘কেরী সাহেবের মুনশি’ পড়ে আকৃষ্ট হন তিনি। তাঁর মনকে প্রভাবিত করে অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী, অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান, কবি-সাহিত্যিক আলাউদ্দিন আল আজাদ। রবীন্দ্র-নজরুল সাহিত্যের প্রতিও চিরকাল শ্রদ্ধাশীল ছিলেন লেখক। দেশকে, দেশের ভাষাকে ভালোবেসেছেন প্রাণমন দিয়ে। নরসিংদীর প্রকৃতি, জীবনধারা, লোকসংস্কৃতি, সাহিত্য, ইতিহাস ও ধর্মই তাঁর রচনার মূল বিষয়।
সরকার আবুল কালাম নরসিংদীর সংস্কৃতিক্ষেত্রে মহীরুহের মতোই অবস্থান নিয়েছিলেন। নরসিংদীর জীবনধারা, ইতিহাস, ঐতিহ্য, সাহিত্য-সংস্কৃতির উৎস তথা শেকড় সন্ধানে জীবনের প্রায় সবটুকু পরমায়ু ব্যয় করেন তিনি। তাই নরসিংদীর জনগণ তাঁকে ‘শেকড়সন্ধানী লেখক’ অভিধায় ভূষিত করেছে। মহানুভবতা, সারল্য, প্রাজ্ঞতা ও মেধাবলে তিনি সামাজিক মানুষের মনে স্থান করে নিয়েছিলেন। তাঁর মৃত্যুতে সাহিত্যাঙ্গনে এক অপূরণীয় শূন্যতা সৃষ্ট হলো। প্রাতিস্বিক দৃষ্টির এমন একজন সম্পন্ন মানুষ হয়তো আর সহজেই খুঁজে পাওয়া যাবে না। এই বোধ তাঁকেও তাড়া করেছিল। তাই তিনি বলেন, ‘আমি ক্ষীণ দৃষ্টি নিয়ে তাকিয়ে আছি আরেকজন সরকার আবুল কালামের আগমন প্রত্যাশায়।’ (সাক্ষাৎকার, ‘সরকার আবুল কালাম, জীবন ও কর্ম’, মোহাম্মদ সাদাত আলী)
সরকার আবুল কালাম করিমপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্ত করেন। মাধ্যমিক শিক্ষা পর্যায়ে এসএসসি পাশ করেন রায়পুরা আদিয়াবাদ ইসলামিয়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে। ১৯৬৭ সালে নরসিংদী সরকারি কলেজ থেকে বিকম পাশ করেন এবং ঢাকা টিচার্স ট্রেনিং কলেজ থেকে বিএড ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি আজীবন সাহিত্য-সংস্কৃতির প্রতি আকৃষ্ট ছিলেন। কর্মজীবনের শুরুতে রসুলপুর মাইনর স্কুলে শিক্ষকতা করেন। তিনি একজন সরলমনা মানুষ, বড় হয়েছেন সাধারণ পরিবারে। গ্রামের প্রাকৃতিক আবহাওয়ার সঙ্গে তাঁর মনের নিবিড় সম্পর্ক ছিল; খাল-বিল-নদীবিধৌত চর এলাকার আবহ তাঁর জীবন ও মনন গঠনে প্রভাব ফেলেছিল। জন্মলগ্ন থেকে গ্রাম্যপরিবেশে লালিত হওয়ায় গ্রামীণ জীবনের আস্বাদটুকু পরিপূর্ণভাবে লাভ করেছিলেন তিনি। নদীবিধৌত, বৃক্ষবেষ্টিত গ্রামের ¯িœগ্ধপ্রকৃতি, গ্রামের সরলপ্রাণ মানুষের সমাজ, গ্রাম্যমানুষের সারল্য ও বিনয় তাঁর স্বভাবের ভিত্তিকে নির্মাণ করেছিল।
তিনি নরসিংদীর জনগণের জন্য অপরিমেয় শ্রম দিয়েছেন; পরমায়ু ক্ষয় করে নানা অবদানে নিজ এলাকাকে সমৃদ্ধ করেছেন। নিরালোকে সত্য সন্ধান করে প্রমিথিউসের মতো আলোর কণা দিয়ে নিজ জেলাকে আলোকিত করেছেন তিনি; কিছুই চাননি বা নিয়ে যাননি। কর্ম অনুসারে এলাকা থেকে তাঁর প্রাপ্তির পরিমাণটা আরো বেশি হবার কথা ছিল। তাঁর জীবদ্দশায় মূল্যায়নটা সেভাবে হয়নি। বরং তাঁর লেখা থেকে তথ্য ও বর্ণনা চুরি করে কেউ কেউ সাহিত্যিক নামটি ধারণ করতে চেয়েছেন। উল্লেখ্য, তাঁর ঘনিষ্ঠ সহকারী মোয়াজ্জেম হোসেন ও হুমায়ুন কবির সরলতার সুযোগ নিয়ে তাঁর গ্রন্থ থেকে লিখিত বিষয় হুবহু চুরি করে নিজ নামে প্রকাশ করেন। পরবর্তীতে ঘটনাটি ধরা পড়লে স্থানীয় সুধিসমাজের কাছে তিনি অভিযোগ পেশ করেন। বিচারসভায় অভিযোগ প্রমাণিত হয়। সরকার আবুল কালাম এই ঘটনার জন্য প্রকাশ্য সভায় অশ্রুপাত করেন।
সরকার আবুল কালাম একজন আলোকিত মানুষ ছিলেন। তাঁর একজন সহকারী হিসেবে ৩০ বছর একত্রে পথ চলেছি। আমার নামের সঙ্গে তাঁর নামের মিল থাকায় তিনি আমাকে ‘মিতা’ সম্বোধন করতেন। দীর্ঘ সময়ের পথ চলায় তাঁকে একজন সম্পন্ন মানুষ হিসেবে পেয়েছি। আমার দৃষ্টিতে মিতা আবুল কালাম একজন স্বনামখ্যাত সাহিত্যিক, সফল গবেষক; চরিত্রগতভাবে সৎ, সরলমনা, আন্তরিক ও উদারপ্রাণ মানুষ। নিজ দেশ, নিজস্ব ভাষা, সাহিত্য, ইতিহাস ও ঐতিহ্যের প্রতি ছিল তাঁর ছিল হার্দিক নিষ্ঠা। সাহিত্য-সংস্কৃতি বলয়ে নিবিড় সম্পৃক্ততা তাঁকে অনন্য করে তুলেছিল।
তাঁর প্রথম গ্রন্থ ‘অশ্রুভেজা পথ’ (উপন্যাস)। কেউ কেউ ‘চমন’ নামক রহস্যোপন্যাসকে প্রথম গ্রন্থ বলে উল্লেখ করেন। ‘চমন’ দশ খ-ে সমাপ্ত নারী স্বাধিকার স্মারক রহস্যসিরিজ। সরকার আবুল কালাম নানাবিষয়ে ৩৮টি গ্রন্থ প্রণয়ন করেন। গ্রন্থের প্রধান বিষয়- নরসিংদীর ইতিহাস ও ঐতিহ্য, মুক্তিযুদ্ধ, নরসিংদীর গুণিজন, শহীদ বুদ্ধিজীবী, লোকঐতিহ্য, ধর্ম ও মনুষ্যত্ব। তাঁর রচিত নির্বাচিত গ্রন্থ- ‘অশ্রুভেজা পথ’ (উপন্যাস), ১৯৭৩; ’চমন’ (রহস্য-উপন্যাস), ১৯৭৪; ‘বর্ণমালা’ (নাটক), ‘একজন ধোপা চাই’ (নাটক), ‘খেলা শেষ হলো’ (নাটক), ‘নরসিংদীর শহীদ বুদ্ধিজীবী’, ১৯৯১; ‘কিংবদন্তীর নরসিংদী’ (৫ খ-), ২০০৩; ‘মনীষীকথা’; ‘নরসিংদীর শহীদ মুক্তিযোদ্ধা’, ২০০৭; ‘নরসিংদীর গুণিজন’, ২০০৯; ‘আলাউদ্দিন আল আজাদ: রামনগর থেকে জাহাঙ্গীর নগর’-২০১৩; ‘নরসিংদীর ঐতিহ্যকথা’, ২০১৭; ‘নরসিংদীর চর এলাকার মাটি ও মানুষ’; ‘নরসিংদীর লোকসংস্কৃতি লোক-ঐতিহ্য’; ‘নরসিংদী জেলায় ইসলাম: ইতিহাস, কিংবদন্তী, সংস্কৃতি’: ‘ড. মনিরুজ্জামান: কিংবদন্তী-জীবন’, ২০২১; সম্পাদনা- ‘মহেশ^রদীর ইতিহাস’- লেখক শ্রীসুরেন্দ্রমোহন পঞ্চতীর্থ। তাঁর অধিকাংশ গ্রন্থ প্রকাশ করেছে নিখিল প্রকাশন, ঢাকা।
সরকার আবুল কালামের দৃষ্টি ছিল গভীর ও বিচিত্র। তিনি তাঁর অন্তর্দৃষ্টিকে প্রোথিত করেন নরসিংদী জেলার সার্বিক পরিচয়ের মূল উৎসের দিকে। নরসিংদীর মাটি ও মানুষকে ভালোবেসে যাকিছু গৌরবের, ইতিহাস ও ঐতিহ্যের তার বেবাক সৃষ্টি সম্পর্কে একটি সার্বিক পরিচয় তুলে ধরবার চেষ্টা করেছেন তাঁর বিপুল রচনাসমগ্রে। তৃণমূল থেকে উচ্চপর্যায় পর্যন্ত কোনো বিষয় বাদ পড়েনি তার দৃষ্টি থেকে। তিনি বলেন, ‘গত প্রায় পঞ্চাশ বছর ধরে আমি খালি হাতে নরসিংদীর মাটি খামচে চলেছি। যেখানে যা রেণু, ধূলিকণা পেয়েছি তাই জড়ো করার চেষ্টা চালিয়েছি নিরন্তর। ’ (সরকার আবুল কালাম জীবন ও কর্ম, ঐ) তিনি বলেন, পঞ্চাশ বছরেরও বেশি সময় কাটিয়ে দিলাম নরসিংদীর শেকড়ের সন্ধানে। যেখানে ধান-দূর্বা যাই পেয়েছি তাই জড়ো করবার চেষ্টা করেছি। ’ (সরকার আবুল কালাম, চর এলাকার মাটি ও মানুষ, ভূমিকা দ্রষ্টব্য)
এটা স্পষ্ট যে নরসিংদী নিয়ে কাজ করলেও তার দৃষ্টি ও রচনার বিষয় যে জেলার পরিসীমায় সীমিত তা বলা যাবে না। নরসিংদীর মাটিতে পা রেখে তিনি নিজ দেশকে এবং দেশের মাটিতে দাঁড়িয়ে বিশ^কে অবলোকন করেছেন। গ্রন্থে উপস্থাপিত বিষয় ও চরিত্রগুলো স্থানীয় নামে পরিচিত হলেও জাতীয় ও বৈশি^ক সম্পর্ক থেকে বিচ্ছিন্ন নয়। সাহিত্য, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য এবং এসব অঙ্গনে প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তিরা কালের সীমায় বন্দি থাকেন না। তাই সরকার আবুল কালামের রচনাবলী কেবল নরসিংদী জেলার সম্পদ মনে করা অসঙ্গত ও অন্যায়।
ইতিহাস, ঐতিহ্য, সাহিত্য, সমাজ, ধর্ম, সংস্কৃতি, ভাষা, প্রকৃতি, জীবনাচার- বিচিত্ররূপে উপস্থিত হয়েছে তাঁর রচনায়। কিছু নির্বাচিত গ্রন্থ সম্পর্কে আলোচনা করা যায়।
সরকার আবুল কালাম সাহিত্যচর্চা শুরু করেছিলেন উপন্যাস দিয়ে যার নাম ‘অশ্রুভেজা পথ’ (১৯৭৩)। এটি একটি সামাজিক বিয়োগান্তধর্মী উপন্যাস। গ্রন্থের পা-ুলিপি দুষ্প্রাপ্য। প্রকাশনাসংস্থা বইবিচিত্রা, নরসিংদী। পরবর্তীতে প্রকাশিত হয় দশখ-ের রহস্যসিরিজ ‘চমন’ (১৯৮৫)। উপন্যাসটি পাঠকমহলে বেশ সমাদর লাভ করে। দশটি সিরিজের নাম- তিন তাসের খেলা, কাঁচা পয়সার জ¦ালা, রঙ বদলের পালা, ভয়াল আর্তনাদ, কঙ্কালের হাসি, দুর্বৃত্তের ফাঁসি, চক্রান্তের ধূ¤্রজাল, মৃত্যুর ঠিকানা, দাবার ঘোড়া, সোনার শিকল। গ্রন্থের প্রকাশক ইব্রাহিম বুক হাউজ, ঢাকা। ব্যক্তি ও সমাজের নানা বিষয় এই উপন্যাসের সিরিজসমূহে স্থান পেয়েছে। গ্রন্থের পা-ুলিপি পাওয়া যায়নি। দুটো উপন্যাসই মৌলিক সৃষ্টি। তাহলেও ‘চমন’ প্রকাশের পর উপন্যাস রচনার পথ ত্যাগ করে তিনি প্রবন্ধ রচনার দিকে আকৃষ্ট হন।
‘নরসিংদীর শহীদ বুদ্ধিজীবী’ (১৯৯১) একটি ছোট আকারের পুস্তক। পুস্তকে নরসিংদী জেলার আটজন কৃতীসন্তানের সংক্ষিপ্ত পরিচয় তুলে ধরেছেন লেখক। তাঁরা হলেন- উনসত্তরের গণ-আন্দোলনের নায়ক শহীদ আসাদ, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের শহীদ অধ্যাপক গিয়াস উদ্দিন আহমদ, সুগার মিলের প্রাশাসনিক কর্মকর্তা শহীদ মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ, নরসিংদী সরকারী কলেজের বাণিজ্যবিভাগের শহীদ প্রভাষক ড. সাদত আলী, শহীদ অধ্যাপক সরোজকুমার নাথ অধিকারী, শহীদ প্রকৌশলী মোহাম্মদ ফজলুর রহমান, চট্টগ্রাম পোর্টের প্রধান প্রকৌশলী শহীদ মোহাম্মদ শামসুজ্জামান ও ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মতিউর রহমান।
ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানের নেতা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের ছাত্র মো. আসাদুজ্জামান স্বাধিকার আন্দোলনে নেতৃত্ব দিতে গিয়ে পুলিস অফিসার ডিএসপি বাহাউদ্দিনের পিস্তলের গুলীতে শহীদ হয়েছিলেন। তিনি নরসিংদীর কৃতীসন্তান (১৯৪২-১৯৬৯)। গ্রন্থে তাঁর জীবনী বিষয়ক তথ্য স্থান পেয়েছে। নরসিংদীর আলোকিত সন্তান, ঢাকাবিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষক গেয়াসউদ্দিন আহমদ ১৯৭১ সনের ১৪ ডিসেম্বর বুদ্ধিজীবী হত্যার শিকার হন। গ্রন্থে তাঁর সংক্ষিপ্ত জীবনী যুক্ত হয়েছে। পরবর্তী পর্যায়ে সাটিরপাড়া কেকে ইনস্টিটিউশনের ছাত্র, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ নর্থবেঙ্গল সুগারমিলের প্রাশাসনিক কর্মকর্তা, বুদ্ধিজীবী মোহাম্মদ শহীদুল্লাহর সংক্ষিপ্ত জীবনী গ্রন্থে বিবৃত হয়েছে। তাঁকে ১৯৭১ সনের ৫ মে হত্যা করা হয়। নরসিংদী রসুলপুরের সন্তান শহীদ ড. সাদত আলী একজন মেধাবান ব্যক্তি ছিলেন। তিনি নরসিংদী সরকারী কলেজের বাণিজ্য বিভাগের প্রভাষক ছিলেন বলে জানা যায়। তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন এবং শিক্ষা ও গবেষণা কেন্দ্রের চেয়ারম্যান পদে নিযুক্ত হন। ১৯৭১ সনে তাঁকে গুম করা হয়; আজ অব্দি তাঁর কোনো হদিস পাওয়া যায়নি। শহীদ অধ্যাপক সরোজকুমার নাথ অধিকারী নরসিংদী সরকারী কলেজের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক ছিলেন। পাকিস্তানী সেনাসদস্যরা তাঁকে ১৯৭১ সনের ২৮ আগস্ট পাঁচদোনা লোহারপুলের কাছে হত্যা করে। ১৯৭১ সনের ২৮ মার্চ হত্যা করা হয় সদর উপজেলার কাজীরকান্দি গ্রামের প্রকৌশলী ফজলুর রহমানকে। রায়পুরা উপজেলার মধ্যনগর গ্রামের অধিবাসী প্রকৌশলী মোহাম্মদ শামসুজ্জামানকে চট্টগ্রাম থেকে গুম করা হয়েছে। আজ পর্যন্ত তাঁর সন্ধান মেলেনি। গ্রন্থে বর্ণিত শেষ শহীদ বুদ্ধিজীবী হিসেবে বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমানের জীবনী বর্ণিত হয়েছে। বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান পশ্চিম পাকিস্তান থেকে জেটবিমান নিয়ে পালিয়ে আসার সময় বিমানযুদ্ধের পর বিমানবিধ্বস্ত হয়ে শহীদ হন। তাকে পশ্চিমপাকিস্তানের মাটিতে সমাধিস্থ করা হলেও ২০০৬ সনে তাঁর লাশ বাংলাদেশে এনে সমাধিস্থ করা হয়। ‘নরসিংদীর শহীদ বুদ্ধিজীবী’ গ্রন্থটি একটি প্রামাণিক দলিল হিসেবে গ্রহণযোগ্য।
সরকার আবুল কালাম বিরচিত সবচাইতে বড় পুস্তক ও সারবান গ্রন্থ ‘কিংবদন্তীর নরসিংদী’। এটি একটি সিরিজ পুস্তক। পাঁচখ- বিশিষ্ট ‘কিংবদন্তীর নরসিংদী’ (২০০৩) শেষ পর্যন্ত সিরিজ বইয়ে রূপান্তরিত হয়েছে। দ্বিতীয় খ-ে ‘মনীষীকথা’, তৃতীয় খ-ে ‘কন্যা জায়া জননী’, চতুর্থ খ-ে ‘কথা-উপকথা’ স্থান পেয়েছে। পঞ্চম খ-টি কবি-কথাসাহিত্যিক আলাউদ্দিন আল আজাদকে নিয়ে লিখিত। আলাউদ্দিন আল আজাদ (ডাকনাম- বাদশা) নরসিংদী জেলার রায়পুরা উপজেলার রামনগর গ্রামে ১৯৩২ সনের ৬ মে জন্ম গ্রহণ করেন। তাঁর মৃত্যু ৩ জুলাই, ২০০৯ সাল। কবিতা, গল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধসহ সাহিত্যের সর্বাঙ্গণে বিচরণ ছিল তাঁর। এই সব্যসাচী লেখকের জীবনী নিয়ে রচিত হয়েছে ‘আলাউদ্দিন আল আজাদ: রামনগর থেকে জাহাঙ্গীর নগর’। লেখক বলেন, ‘আমি রামনগরের বাদশা কীভাবে বৈরী পরিবেশ অতিক্রম করে সংস্কৃতি অঙ্গনের বাদশা হয়ে উঠলো তার একটা সাদামাটা চিত্র অঙ্কন করার প্রয়াস চালিয়েছি মাত্র।’ (গ্রন্থের ভূমিকা দ্রষ্টব্য)
‘কন্যা জায়া জননী’ গ্রন্থে মুসলিম ও হিন্দু মহিয়সী নারীরা স্থান পেয়েছে- সকিনা, সোনাভান, মতিজান, খাদিজা খাতু, শফুরা খাতুন, জহুরা বেগম, হাবিবা খাতুন, প্রভাবতী দেবী, অক্ষয়কুমারী দেবী, স্বর্ণকুমারী দেবী, সুনীতিবালা চন্দ, হেমন্ত শশী সেন, হেম কুসুম সেন, প্রিয়বালা গুপ্তা প্রমুখ বিদুষী নারীরা স্থান পেছে এই পুস্তকে।
‘কথা-উপকথা’ সাজানো হয়েছে বিভিন্ন এলাকায় প্রচলিত লোককথা দিয়ে। অতিরিক্ত যুক্ত হয়েছে খায়রুল কবির (ফরিদ মিয়া), আহমেদুল কবির (মনু মিয়া), সাধক কথুনাথের কাহিনী। যুক্ত হয়েছে মেঘনা, ব্রহ্মপুত্র, আড়িয়াল খাঁ নদীর প্রসঙ্গ। সাধু কথুনাথের মন্দির প্রসঙ্গ। মন্দিরটি পলাশ উপজেলাধীন ডাঙার তালতলায় অবস্থিত।
সরকার আবুল কালাম নরসিংদীর ইতিহাস ও লোক ঐতিহ্যের উৎস সন্ধানে গভীর অন্তর্দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছেন এবং জেলার গুণিজন, লোককথা, লোকসাহিত্য ও ঐতিহাসিক তথ্য-উপাত্ত, প্রাচীন ঐতিহাসিক নিদর্শনের পরিচয় তুলে ধরেছেন। নরসিংদীর সন্তান হয়ে জেলার প্রকৃতি, ঐতিহ্য, জনজীবন সম্পর্কে তিনি জেনেছেন বিস্তর, আত্মস্থ করেছেন বিচিত্র অভিজ্ঞতা। সেই অভিজ্ঞতাকে বিচিত্রভাবে ঢেলে দিয়েছেন তাঁর সৃষ্টিতে। তাঁর দৃষ্টি ছিল অতলগভীর, মহৎ, উদার ও সরল। ‘কিংবদন্তীর নরসিংদী’ পুস্তকের বিস্তৃত পরিসরে লেখক নরসিংদী জেলার লোকপ্রকৃতি, ঐতিহ্য ও জেলার গুণী নারী-পুরুষের জীবনী ও কর্মের বিবরণ তুলে ধরেছেন।
স্বদেশ, স্বসংস্কৃতি, ভাষা ও জীবনবোধের প্রতি ছিল তাঁর ঐকান্তিক নিষ্ঠা। তাঁর উদ্দেশ্য ছিল নরসিংদীকে সার্বিকভাবে দেশের কাছে, নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা। বলাবাহুল্য, নরসিংদীতে এমন আন্তরিক প্রয়াস আর কারো মাঝে দেখা যায়না। তিনি সারা জীবন নরসিংদীর শেকড় সন্ধান করেছেন। জীবনের শেষবেলায় অন্ধত্ব বরণ করেও লেখনী থেকে সরে দাঁড়াননি। নরসিংদী সম্পর্কে এমন আত্মনিষ্ঠ মমতা আর কর্মপ্রয়াস সহসাই আর লক্ষ্য করবো না এটা নিশ্চিত। তাই তিনি এক ব্যতিক্রমী চিন্তা ও চেতনার মানুষ। তাঁর অবদানের প্রতিদান দেয়া অসম্ভব।
‘নরসিংদীর শহীদ মুক্তিযোদ্ধা’ (২০০৭) গ্রন্থটি ২০০৭ সনে প্রকাশিত। প্রকাশনা সংস্থা-নিখিল প্রকাশন, ঢাকা। গ্রন্থটি উৎসর্গ করেন- নাতনি- ভাষা ও নাতি বণর্কে, ‘যারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় জীবন গড়বে।’ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে নরসিংদীর বিভিন্ন রণাঙ্গনে সম্মুখযুদ্ধে যাঁরা শহীদ হয়েছেন সেসব শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে রচিত হয়েছে এই গ্রন্থ। গ্রন্থে ৬৩জন মুক্তিযোদ্ধার সংক্ষিপ্ত পরিচয় তুলে ধরা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে নরসিংদী সদর উপজেলার ১৩ জন, রায়পুরা উপজেলার ১৭ জন, শিবপুর উপজেলার ৯ জন, বেলাব উপজেলার ১১ জন, মনোহরদী উপজেলার ৮ জন এবং পলাশ উপজেলার ৫ জন শহীদ মুক্তিযোদ্ধার নাম অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। গ্রন্থে শহীদদের একটি তালিকা সন্নিবিষ্ট হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধকালে নরসিংদী জেলার বড়িবাড়ি, পলাশ, পুটিয়া, পাঁচদোনা, হাঁটুভাঙা, কটিয়াদি, রামনগর, ডাঙ্গা ও বাগবাড়িতে ভয়ারহ সম্মুখযুদ্ধ সংঘটিত হয়। এই যুদ্ধে উল্লিখিত বীর মুক্তিযোদ্ধারা শহীদ হন। গ্রন্থকার তাঁর গ্রন্থে অত্যন্ত নিষ্ঠার সঙ্গে তথ্যসমৃদ্ধ বর্ণনা দিয়েছেন। তাঁর বর্ণনায় শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের দেশপ্রেম, সাহসিকতা, আত্মত্যাগ এবং পাকিস্তান সেনাবাহিনীর নৃশংসতার মর্মন্তুদ চিত্র ফুটে ওঠেছে। গ্রন্থকার তাঁর বক্তব্যে আক্ষেপ করে বলেন, ‘দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য, মুক্তিযুদ্ধ আর মুক্তিযোদ্ধাগণ আমাদের চেতনা থেকে ক্রমশ সরে যাচ্ছে। ধূসর হয়ে যাচ্ছে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের জীবন ও কর্ম। এ অবস্থায় নবপ্রজন্মের কাছে তাঁদের মহান কর্মকা- তুলে ধরাই আমার লক্ষ্য।’ ( গ্রন্থের ভূমিকা দ্রষ্টব্য।)
গ্রন্থে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের বীরত্ব ও আত্মবিসর্জনের বিয়োগান্ত ঘটনা বর্ণিত হয়েছে। বর্ণিত ঘটনাগুলো পড়লে সহজেই মুক্তিযোদ্ধাদের দেশপ্রেম এবং তার পাশাপাশি পশ্চিমাবাহিনীর পাশবিক আচরণ সম্পর্কে ধারণা করা যায়। গ্রন্থে নরসিংদী সদর উপজেলাধীন কামার গাঁয়ের আবদুস সালাম, শেখেরচর গ্রামের বাসিন্দা ও নরসিংদী সরকারি কলেজের ছাত্র আনোয়ার হোসেন, ভাগদির পিয়ন আওলাদ হোসেন, বৌয়াকুড় গ্রামের ডা. আবদুল হাকিমের ছেলে সংস্কৃতিকর্মী আবদুস সাত্তার, শেখেরচর গ্রামের কুলি আঞ্জত আলী, ভাটপাড়ার অধিবাসী তাজউদ্দিন পাঠান, নজরপুরের অধিবাসী ছাত্র মফিজ উদ্দিন, বদরপুরের ইপিআর সদস্য মহিউদ্দিন ভুঁইয়া, ভেলানগরের মতিউর রহমান, নেহাব গ্রামের মোহাম্মদ আলী, মহিষাশুরা গ্রামের বাসিন্দা হারুন আর রশিদ, নরসিংদী কলেজের ছাত্র চৌয়ালার বাসিন্দা সফিকুল ইসলাম, তেতুলিয়ার চিত্রশিল্পী শামসুল হক প্রমুখ বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ মাতৃভূমির মুক্তির জন্য জীবন দান করেন। গ্রন্থে তাদের শাহাদাৎ বরণের কাহিনীর তথ্যসংবলিত বিবরণ তুলে ধরেছেন লেখক। নরসিংদী জেলার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে গ্রন্থটিও একটি প্রামাণিক দলিল।
রায়পুরা উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সালাম, কাউসার, আবু তাহের, আহসান উল্লাহ, ইদ্রিস আলী, গোলাম মোস্তফা, জয়নাল আবেদিন সরকার ডিপটি, জহিরুল হক, তাইজ উদ্দিন, মো. নূরুল হক, বশিরুল ইসলাম, মোছলেহ উদ্দিন খান, সোহরাব হোসেন, সামসু উদ্দিন, সাহাব উদ্দিন নান্টু, হাছেন আলী সম্মুখসমরে দেশের জন্য জীবন দিয়ে ইতিহাসে স্থান করে নিয়েছেন। শিবপুর উপজেলার আবদুল মোতালিব, ইব্রাহিম খন্দকার, নূরুল ইসলাম, ফজলুল হক, মিয়ার উদ্দিন, মোসলেহ উদ্দিন, সাদেকুর রহমান সরকার, সামসুল হক, শামসুল ইসলাম, ইপিআর সদস্য শামসুল ইসলাম স্বাধীনতার জন্য সম্মুখ যুদ্ধে অংশ নিয়ে শহীদ হন।
বেলাব উপজেলা থেকে শহীদ হন- কলেজছাত্র আবু নঈম, মোহাম্মদ নজিমুদ্দিন খান, লক্ষ্মীপুর গ্রামের আবদুস সালাম, আবদুল হক, আবদুর রাজ্জাক, আবু হানিফ, কাজী নাজিম উদ্দিন, কিতাব আলী, হাজী আসমত কলেজের ছাত্র নূরুল হক, ফজর আলী, মোমতাজ উদ্দিন ও শরাফত উল্লাহ। গ্রন্থকার তাদের যুদ্ধঘটনা ও শাহাদাৎ বরণের কাহিনী বস্তুনিষ্ঠভাবে তুলে ধরেছেন।
মনোহরদী উপজেলার আবদুল বাতেন, ইয়াকুব আলী মোল্লা, কেরামত আলী, গোলাম জব্বার, মনির হোসেন, মনিরুজ্জামান, রবিউল আউয়াল, শহীদুল্লাহ স্বাধীনতা যুদ্ধে জীবন দান করেন।
পলাশ উপজেলা থেকে সম্মুখযুদ্ধে অংশ নিয়ে জীবন দিয়েছেন- আলী আকবর, আবদুল করিম, আবদুল মোতালিব, আবদুল আজিজ ও মোহাম্মদ শামীম। গবেষক সরকার আবুল কালাম ব্যক্তিগতভাবে সরেজমিনে অনুসন্ধান চালিয়ে তথ্য সংগ্রহ করেন এবং নরসিংদী জেলার এইসব বীরশহীদের সংক্ষিপ্ত পরিচয়সহ শাহাদাৎ বরণের বীরত্বপূর্ণ ঘটনা বর্ণনা করেন। আজ অব্দি জেলার শহীদদের পরিচিতিমূলক এমন কোনো গ্রন্থ আর প্রণীত হয়নি। জেলার সচেতন নাগরিক হিসেবে লেখক একটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন।
‘নরসিংদীর গুণিজন’ (২০০৯) পুস্তকটি প্রণীত হয়েছে নরসিংদী জেলার সেরা কয়েকজন গুণীদের নিয়ে। গ্রন্থটি উৎসর্গ করেন
ড. মনিরুজ্জামান ও ড. সফিউদ্দিন আহমদকে। গ্রন্থে নরসিংদী জেলায় জন্মগ্রহণকারী ৪৮ জন কৃতী পুরুষের সংক্ষিপ্ত জীবনী স্থান পেয়েছে। তাঁদের মধ্যে- সাটিরপাড়া কে.কে ইনস্টিটিউশন ও নরসিংদী সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ললিত মোহন রায়, মহাত্মা গান্ধীর অনুসারী রাজনীতিবিদ সুন্দর আলী গান্ধী, নরসিংদী সরকারি কলেজ ও ব্রাহ্মণদী কে.কে.এম উচ্চবিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা জিতেন্দ্র কিশোর মৌলিক, রাজনীতিবিদ-বক্তা ও জেলাবোর্ডেসদস্য সেকান্দর আলী মাস্টার, শিক্ষক-রাজনীতিবিদ সতীশচন্দ্র পাকড়াশী, আলেম ও ইসলামী চিন্তাবিদ মাওলানা মোহাম্মদ আবদুল আজিজ, কিংবদন্তীতুল্য শিক্ষক ও রাজনীতিবিদ বেলায়েত হোসেন মাস্টার, কমিউনিস্ট নেতা বিজয়ভূষণ চাটার্জি, উয়ারি-বটেশ^র প্রতœকীর্তি আবিষ্কারক, শিক্ষক মোহাম্মদ হানিফ পাঠান, সাম্প্রতিক বাঙলা কবিতার শ্রেষ্ঠ কবি শামসুর রাহমান, কবি আজিজুল হাকিম, সঙ্গীতজ্ঞ ওস্তাদ কালু মিয়া, কবি বেনজির আহমদ, চিত্রকর এম শাহাবুদ্দিন, সাম্যবাদী নেতা ও গল্পকার সোমেন চন্দ, ইসলামী আলেম ও সমাজসেবক মৌলভী তোফাজ্জল হোসেন, মন্ত্রী, সচিব ও রাজনীতিবিদ আবদুল মোমেন খান, ন্যাপনেতা আবদুল হাসিম মিয়া, রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবক আহমেদুল কবির, শিক্ষানুরাগী-সমাজসেবক আবদুর রাজ্জাক ভূঞা, রাজনীতিবিদ এবং স্বাধীন বাংলাদেশের নরসিংদী-১ আসনের প্রথম সাংসদ মোসলেহ উদ্দিন ভূঞা, রাজনীতিবিদ ও সংস্কৃতিবান শামসুদ্দিন আহমেদ এসহাক, ষষ্ঠীবর শর্মা, কবি সঞ্জয়, মুন্সি মোহাম্মদ রিয়াজ উদ্দিন, পবিত্র কুরআন শরিফের অনুবাদক ভাই ব্রাহ্মনেতা গিরীশচন্দ্র সেন, কবি দ্বিজ দাস, কবিয়ালস¤্রাট হরিচরণ আচার্য, ভারতের প্রথম বাঙালি আইসিএস স্যার কেজি গুপ্ত প্রমুখের নাম শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মর্তব্য। তাছাড়াও তালিকায় আছেন- ত্রৈলোক্যনাথ ভট্টাচার্য, দেওয়ান হাফিজ, সুরেন্দ্রমোহন পঞ্চতীর্থ, অক্রূরচন্দ্র ধর, মোহাম্মদ জাফর আলী, আবদুল হাকিম, রবীন্দ্রনাথ সেন, মীর রহমত আলী, সাদত আলী, আলী আকবর, মফিজ উদ্দিন, মীর সিরাজুল হুদা, ঈশ^রচন্দ্র সূত্রধর, শফিকুল আসগর, হাবিবুল্লাহ বাহার, শহিদুল হক, ড. এম আসাদুজ্জামান প্রমুখ ব্যক্তিরা। তাঁরা সবাই নরসিংদীর আলোকিত পুরুষ। নিজ কীর্তিতে চিরভাস্বর তাঁরা। গ্রন্থকার অত্যন্ত নিষ্ঠার সঙ্গে তাঁদের জীবনগত তথ্য উপস্থাপন করে জেলার গুণিব্যক্তিদের আমাদের সামনে উপস্থিত করেছেন।
‘নরসিংদী জেলায় ইসলাম: ইতিহাস, কিংবদন্তী ও সংস্কৃতি’ (২০১২) গ্রন্থটি নরসিংদী জেলায় ইসলাম প্রচারের ইতিহাস বিষয়ে রচিত ধর্ম বিষয়ক পুস্তক হলেও গ্রন্থে কিংবদন্তী ও সংস্কৃতি বিষয়ে ১৪টি নিবন্ধ অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। কিংবদন্তী অধ্যায়ে পরদেশিয়া, মেঘনাপারের বাঁশিওয়ালা, ডোয়াই কন্যা কমলা, রাহুতনন্দিনী চন্দনা, কানাইচঙের মাঠ, মাওলানা আবদুল আজিজ, সাহিত্য আড্ডায় কবি নজরুল ও নরসিংদীর হাড়াই ভুঁইয়া- শীর্ষক নিবন্ধ অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। সংস্কৃতি অধ্যায়ে নরসিংদীর ইসলামী লোকসঙ্গীত, গাজীর গীত ও দুর্জন আলী, বৃষ্টি-আবাহন, বর্ষবরণ, মেঘনাপারের বিয়ের গীত, দেওয়ানখালির উপকথা, বাংলা নববর্ষ, ব্যতিক্রম পুঁথি- নূরুল এসলাম- নিবন্ধ সন্নিবেশিত হয়েছে। এ অধ্যায়ের বিষয়গুলো একান্তই লোকসংস্কৃতি বিষয়ক। লেখক রচিত গ্রন্থের মধ্যে এটি সর্বাপেক্ষা বড়ো অখ-গ্রন্থ এবং নানা তথ্যে সমৃদ্ধ একটি মূল্যবান রচনা। তবে অন্য পুস্তকে বর্ণিত কিছু বিষয়ও এই পুস্তকে স্থান পেয়েছে। পৃষ্ঠা সংখ্যা-২৭২, প্রকাশনা সংস্থা- নিখিল প্রকাশন, ঢাকা। প্রকাশ কাল- ২০১২। প্রকাশক- তাঁর স্ত্রী রুবি আক্তার। পুস্তক প্রকাশে সহায়তা করেন তাঁর ভাগিনা ব্যাংক কর্মকর্তা- নূরুল হাসানাত। লেখক গ্রন্থটি উৎসর্গ করেন তাঁর বাবা আবদুল হেকিম প-িত, মা সুফিয়া খাতুন, শ^শুর মফিজ উদ্দিন আহমেদ ও শাশুড়ি মেহেরুন্নেসাকে। গ্রন্থের শ্রুতিলেখক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে মুক্তা আক্তার। অন্যান্য শ্রুতিলেখক বীথি, সায়মা, আলী জানের শিক্ষক মোস্তফা কামাল রতন, লেখকের নাতনি ভাষা বিভিন্ন সময় শ্রুতিলেখক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
সরকার আবুল কালাম আলোর দূত, তিমিরবিদারী এক প্রতিভা; এক কীর্তিমান পুরুষ। তিনি অখ-কে ধারণ করেছেন, খ-কে নয়। তাঁর কর্মকা- মহৎ প্রয়াসের জীবন্ত স্বাক্ষর। তিনি ¯্রষ্টা তাই সৃষ্টিশীলতা তাঁর ধর্ম। তাঁর দৃষ্টি কল্যাণকর, কর্ম মহত্ততর। তাই তিনি মহত্তম পুরুষ। তাঁর সৃষ্টিশৈলী তাঁকে বিচিত্র ও মহৎ করেছে। এই গ্রন্থে সৃষ্টিশীলতার প্রমাণ অতি স্পষ্ট।
ধারণা করা হয়, সুলতান মাহমুদের ভারত অভিযানের সূত্রে ইসলামধর্ম ভারত উপমহাদেশে প্রবেশ করে। পরবর্তীতে বিভিন্ন সুফিসাধক, পীর, দরবেশ, ফকির, আলেমদের চেষ্টায় এই দেশে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হয়। তারাই এই উপমহাদেশ ইসলাম প্রচার ও প্রতিষ্ঠা করে। নরসিংদী তার ব্যতিক্রম নয়। সরকার আবুল কালাম তাঁর এই গ্রন্থে বাংলাদেশে কীভাবে ইসলাম প্রচারিত হলো, কারা প্রচার করলেন তার সংক্ষিপ্ত বর্ণনা দিয়েছেন। বর্ণনার সবই যে ইতিহাস ভিত্তিক তা নয়; অনেক ক্ষেত্রেই তিনি প্রচলিত গল্প ও কিংবদন্তীর আশ্রয় নিয়েছেন। গ্রন্থে ৫৫ জন মুসলিম ধর্মপ্রচারক ও সাধকের জীবনী ও কর্মের বিবরণ দেয়া হয়েছে।
গ্রন্থে কিংবদন্তী ও সংস্কৃতি অংশে কিছু লোককথা ও ব্যক্তির বর্ণনা প্রদান করা হয়েছে। ডোয়াই কন্যা কমলা, রাহুত নন্দিনী চন্দনা, গাজীর গীতের গায়েন দুর্জন আলী, মাওলানা আবদুল আজিজ, হাড়াই ভুঁইয়া- প্রমুখের পরিচয় দেয়া হয়েছে। নবম অধ্যায়ে মুসলিম নিদর্শন হিসেবে পারুলিয়ার প্রাচীন মসজিদ, কুমারদির প্রাচীন মসজিদ, আশ্রাবপুরের গায়েবী মসজিদসহ কয়েকটি মাদ্রাসার বর্ণনা দেয়া হয়েছে।
ধর্মপ্রচারক মুসলিম সাধকদের মধ্যে শাহসুলতান কমরুদ্দিন রুমি (র.), শাহ সুলতান বলখি (র.), বাবা আদম শহীদ (র.), শেখ শরফুদ্দিন আবু তাওয়ামা (র.), শেখ শরফুদ্দিন ইয়াহিয়া (র.), হযরত শাহজালাল (র.), শাহ ইরান (র.), কাবুল শাহ (র.), ফতে আলী শাহ (র.), শাহ মনসুর (র.), মসনদে আলা ঈসা, দেওয়ান শরিফ খাঁ (র.), মওলানা অলিম উদ্দিন (র.), আশ্রাব খাঁ (র.), শেখ গোলাম মাওলা (র.), শেখ গোলাম মোহাম্মদ (র.), গোলাম রেজা (র.), আরবাব আলী খান (র.), মাওলানা মিন্নাত আলী (র.), মুনশি মোহাম্মদ রিয়াজ উদ্দিন (র.), মাওলানা আবদুল লতিফ (র.), মাওলানা ইয়াকুব আলী (র.), সাধক ওসমান গনি শাহ (র.), লাল শাহ (র.), আবদুল করিম মুনশি (র.), মুন্সি মেহেরুল্লাহ (র.), হাজী শরিয়ত উল্লাহ (র.) প্রমুখের নাম বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। গ্রন্থকার প্রত্যক্ষভাবে নরসিংদীতে ধর্মপ্রচার করেছেন এমন কয়েকজনের নাম উল্লেখ করেন- শেখ শরফুদ্দিন আবু তাওয়ামা (র.), হযরত শাহজালাল (র.), শাহ ইরান (র.), কাবুল শাহ (র.), ফতে আলী শাহ (র.), শাহ মনসুর (র.) প্রমুখ। তাঁর মতে বাংলাদেশে সুপ্রাচীনকালে ধর্মপ্রচার করতে আসেন সুফিসাধক শাহসুলতান কমরুদ্দিন রুমি (র.)। বখতিয়ার খিলজির মুসলিম বিজয়ের আগেই তিনি ইসলাম প্রচার করেন বলে উল্লেখ করা হয়। নারায়ণগঞ্জ জেলা বা তৎকালীন মহেশ^রদী পরগণায় ১২৭৮ সালে প্রথম ইসলাম প্রচার করতে আসেন শায়খ শরফুদ্দিন আবু তাওয়ামা (র.)। তার পরে শেখ শরফুদ্দিন ইয়াহিয়া মানেরি (র.) এই এলাকায় ইসলাম ধর্ম প্রচার করেন বলে জানা যায়। বখতিয়ার খিলজির বঙ্গবিজয় এবং পরবর্তীতে শামসুদ্দিন ইলিয়াস শাহের মুসলিম শাসন প্রতিষ্ঠার পর থেকে ইসলাম প্রচারের ধারা চালু হয়। ইসলামের আদর্শে প্রভাবিত হয়ে বিভিন্ন ধর্মের সাধারণ মানুষ স্বেচ্ছায় ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করতে থাকে। অনেক রাজা, সেনাপতি রাজপুত্রগণ ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত হন। গ্রন্থে মেঘনাপারের বাঁশিওয়ালা, ডোয়াই কন্যা কমলার কাহিনীও বর্ণিত হয়েছে। অন্যগন্থেও এ দুটো কাহিনীর পুনর্মুদ্রণ দেখা যায়। পুণ্যপালের কিশোরী মেয়ে সারদা এবং ডোয়াই ছেলামত আলীর মেয়ে কমলা বেশ জীবন্ত।
নরসিংদীতে ইসলাম প্রচার সম্পর্কে গ্রন্থকার তাঁর গ্রন্থে বলেন, ‘কখন কীভাবে আজকের জেলা নরসিংদীতে ইসলাম প্রচার শুরু হয় সে ইতিহাস ধূলিধূসর। ভারত তথা বাংলাদেশের ইসলাম প্রচার ও প্রসারের ইতিহাস বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় কিছুসংখ্যক বুজুর্গান ব্যক্তি ও পীর আউলিয়া এ অঞ্চলে আগমন করেন ইসলাম প্রচার ও প্রতিষ্ঠার ব্রত নিয়ে। অন্য অঞ্চলের ন্যায় এখানেও মূলত ইসলাম প্রচার হয় সুফিসাধক, পীর-ফকির ও বুজুর্গান ব্যক্তিদের মাধ্যমে। সে সব ব্যক্তিবর্গের ধারাবাহিক পরিচিতি বা ইতিহাস খুব স্পষ্ট নয়। অনেকাংশেই জনশ্রুতি বা কিংবদন্তীনির্ভর। তবে এ কথা সত্য গোটা জেলায় রয়েছে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক পীর-ফকিরের দরগাহ, মাজার অথবা তাদের স্মৃতিবিজড়িত মসজিদ।’ (পৃ-৩৮, নরসিংদী জেলায় ইসলাম: ইতিহাস, কিংবদন্তী ও সংস্কৃতি)
জেলার ইতিহাস ও ঐতিহ্য সন্ধানে অপরিসীম শ্রম ও মেধা ব্যয় করেন সরকার আবুল কালাম। প্রতিকূলতার কাছে পরাজয় বরণ করেননি তিনি। ড. আ.আ.ম.স. আরেফিন সিদ্দিক বলেন, ‘জেলার ইতিহাস ও ঐতিহ্যের শিকড়ের সন্ধানে নিজের জীবনকে উৎসর্গ করে কাজ করে চলেছেন এমন একজন হলেন নিভৃতচারী ও প্রচারবিমুখ লেখক-গবেষক সরকার আবুল কালাম। গবেষক সরকার আবুল কালামের গবেষণার বিষয় খুবই তাৎপর্যপূর্ণ ও ঐতিহ্যম-িত। তিনি নরসিংদী জেলার এমনসব তথ্য আমাদের কাছে তুলে ধরেছেন যা সত্যি গর্বের। তাঁর প্রতিটি গ্রন্থে নরসিংদী জেলার কৃতি সন্তানদের অবদানের কথা, ইতিহাস ও ঐতিহ্যের কথা উঠে এসেছে।’ (ড. আ. আ. এ. স. আরেফিন সিদ্দক, সাবেক উপাচার্য, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়।)
‘নরসিংদীর ঐতিহ্যকথা’ (২০১৭) পুস্তকটি গাজির গীতের গায়েন দুর্জন আলী এবং কবিয়াল আচার্য হরিচরণকে উৎসর্গ করা হয়েছে।
গ্রন্থে নরসিংদী নামের প্রবর্তন কীভাবে হলো, নরসিংদীর জনপদ, রসরচনা, ধর্ম, লোকসংস্কৃতি, সাহিত্য, তীর্থস্থান, নরসিংদীর গুণিজন, মুক্তিযুদ্ধ, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর- ইত্যাদি বিষয়ে লিখিত প্রবন্ধ গ্রন্থে স্থান পেয়েছে। ভাই গিরিশচন্দ্র সেন, কবিয়াল আচার্য হরিচরণ সম্পর্কে নতুন তথ্য উপস্থাপন করেন তিনি। গ্রন্থে ‘ড. মনিরুজ্জামান: কিছু প্রাসঙ্গিক ভাবনা’ নামে একটি প্রবন্ধ রয়েছে। প্রবন্ধটি চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয়ের বাঙলাবিভাগের প্রফেসর বিশিষ্ট ভাষাতত্ত্ববিদ, কলা অনুষদের ডিন ড. মনিরুজ্জামানকে নিয়ে লেখা। পরবর্তীতে তিনি এই ব্যক্তিকে নিয়ে একটি আলাদা গ্রন্থ প্রণয়ন করেন যার নাম-‘মনিরুজ্জামানের কিংবদন্তী-জীবন’, প্রকাশকাল ১৫ জুন, ২০২১ খ্রি.। এই গ্রন্থটি তাঁর জীবনের সর্বশেষ লিখিত গ্রন্থ। প্রকাশ করেছে আদিয়াবাদ সাহিত্য-ভবন ও ভাষাকেন্দ্র, রায়পুরা, নরসিংদী। প্রচ্ছদ অঙ্কনে সুলতান শাহরীয়ার। সহযোগিতায় অধ্যাপক শান্তিরঞ্জন ভৌমিক। উৎসর্গ করেন মুক্তিযুদ্ধ ও ভাষা আন্দোলন গবেষক এম. আর মাহবুবকে।
এ গ্রন্থে বস্তুত নরসিংদীর ঐতিহ্যনির্মাতা, মুক্তিযোদ্ধা, বুদ্ধিজীবী, কবি-সাহিত্যিক, ঐতিহাসিক স্থান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ধর্মসাধক, তীর্থস্থান, স্থানীয় ভাষা ইত্যাদি বিষয়ক নিবন্ধ সন্নিবেশিত হয়েছে। বেশকিছ লেখা পূর্বে প্রকাশিক গ্রন্থ থেকে সংগৃহীত অথবা সম্পাদিত। ললিত মোহন রায়, সুন্দর আলী গান্ধী, জিতেন্দ্র কিশোর মৌলিক, সতীশচন্দ্র পাকড়াশী, গিরিশচন্দ্র সেন, স্যার কে.জি গুপ্ত, হরিচরণ আচার্য, সোমেন চন্দ, কবি শামসুর রাহমান, আলাউদ্দিন আল আজাদ প্রমুখ ব্যক্তির পরিচয় ও অবদান সম্পর্কে পূববর্তী গ্রন্থে বর্ণনা পাওয়া যায়। নতুন যুক্ত করা হয়েছে ব্রিগেডিয়ার এ. এন. এম নূরুজ্জামান বীর উত্তম, লে. কর্নেল আবদুর রউফ, সুবেদার খন্দকার মতিউর রহমান, সাহাবুদ্দিন নান্টু, বীর বিক্রম, লে. কর্নেল (অব.) মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হিরু বীরপ্রতীক এমপি, নৌসৈনিক সিরাজ উদ্দিন আহমেদ বীর প্রতীক, মো. আবুল বাশার বীরপ্রতীক, মো. মোজাম্মেল হক বীর প্রতীক প্রমুখের নাম।
প্রাচীন ঐতিহাসিক স্থান ‘ঐতিহ্যের শেকড়’ অধ্যায়ে উয়ারি বটেশ^র প্রসঙ্গে তথ্যমূলক আলোচনা করা হয়েছে। ‘নরসিংদীর কবি-সাহিত্যিক’ শীর্ষক নিবন্ধে অতি সংক্ষিপ্তভাবে নরসিংদী জেলায় জন্মগ্রহণ করেছেন এমন কবি-সাহিত্যিক-শিল্পীদের সাহিত্য-শিল্পকর্মের বর্ণনা দেয়া হয়েছে। গ্রন্থে ‘সবুজ পল্লীতে নরসিংদীর খবর’ শীর্ষক নিবন্ধে নরসিংদী থেকে প্রকাশিত কয়েকটি পত্রিকার বর্ণনা দেয়া হয়েছে- সবুজ পল্লী (১৩৩৩ বাং) সম্পাদক ছিলেন বেলাব থানার মোহাম্মদ জাফর আলী। পত্রিকাটি একটি সমিতির মুখপত্র হিসেবে প্রকাশিত হয়। তারপর প্রকাশিত হয়- ‘অতিক্রম, ‘বৈপ্লবিক সমবায়, ‘বেলাব সমাচার, ‘অগ্নিবীণা, ‘জাগরণ, ‘পুণ্যভমি, ‘খোরাক, ‘নরসিংদীর খবর (আগস্ট, ১৯৯১ সন), জাগরিত বাংলা, দৈনিক উত্তাপ, আজকের চেতনা। নরসিংদী জেলা থেকে বর্তমানে ৩৮টি স্থানীয় পত্রিকা প্রকাশিত হয়।
গ্রামপরিক্রমা পর্যায়ে উয়ারি বটেশ^রের ঐতিহাসিক গুরুত্ব ব্যাখ্যা করেন লেখক। ২৫০০ বছর আগের প্রতœকীর্তি নরসিংদী জেলার বেলাব উপজেলার উয়ারি বটেশ^র। এই ঐতিহাসিক স্থানটি এমন একটি প্রাচীন কীর্তি যেখানে বাস করতো দুর্ধর্ষ গঙ্গারিডই জাতি গ্রিক বীর আলেকজান্ডার এই জাতির ভয়ে দ্রুত ভারতবর্ষ ত্যাগ করেন বলে জানা যায়।
উয়ারি-বটেশ^র নামের এই সভ্যতার সঙ্গে পাশ্চাত্যের সম্পর্ক ছিল বলে জানা যায়। এখানে মুদ্রা, মৃৎপাত্র, ধাতবনিদর্শন, কাঁচের পুঁিত, পাথরের শিল্পবস্তু, নানা আসবাবপত্রসহ বিভিন্ন প্রতœতাত্ত্বিক নিদর্শন পাওয়া গেছে যা প্রাচীন বাংলা ও বাঙালির ঐতিহাসিক নিদর্শন। এই প্রতœনিদর্শন বাঙালি জাতির এতকালের প্রতিষ্ঠিত ইতিহাসকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। গ্রন্থকার প্রাচীন ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে অবস্থিত ঊয়ারি-বটেশ^রকে আরেক ‘মহাস্থানগড়’ নামে আখ্যায়িত করেন। এই প্রাচীন সভ্যতার আবিষ্কারক স্কুলশিক্ষক সাহিত্যিক হানিফ পাঠান। হানিফ পাঠানের মৃত্যুর পর তাঁর ছেলে হাবিবুল্লাহ পাঠান স্থলাভিষিক্ত হয়ে উয়ারি বটেশ^রের গবেষণাকর্ম ও আবিষ্কারের কার্যক্রমকে পরিচালিত করছেন। জাহাঙ্গীর নগর বিশববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. সুফি মোস্তাফিজুর রহমান এই প্রাচীন সভ্যতাকে কেন্দ্র করে খননকার্য পরিচালনা করেন। এখানে প্রতিষ্ঠিত হয় ‘ঐতিহ্য-অন্বেষণ’ নামের গবেষণাকেন্দ্র। এখান থেকে যে প্রাচীন উপাদার উদ্ধার করা হয়েছে তা তা¤্রপ্রস্তর যুগের মানুষের ব্যবহৃত উপাদান বলে জানা যায়।
‘নরসিংদীর ঐতিহ্যকথা’ পুস্তকে মোট ২৯টি প্রবন্ধ স্থান পেয়েছে। ‘নরসিংদীর ঐতিহ্য নির্মাতাদের কয়েকজন’ প্রবন্ধে ১১ জন গুণিব্যক্তির সংক্ষিপ্ত পরিচয় প্রদান করা হয়েছে- জমিদার ললিতমোহন রায়, সুন্দর আলী গান্ধী, জিতেন্দ্রকিশোর মৌলিক, সতীশ পাকড়াশী, গিরিশচন্দ্র সেন, স্যার কে.জি গুপ্ত, কবি শামসুর রাহমান, আলাউদ্দিন আল আজাদ, সোমেন চন্দ, মোহাম্মদ হানিফ পাঠান। আলাউদ্দিন আল আজাদ বাদে অন্যদের সম্পর্কে ‘নরসিংদীর গুণিজন’ পুস্তকে আলোচনা করা হয়েছে। তবে আলোচনায় ভিন্নতা রয়েছে। ‘নরসিংদীর খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ বৃদ্ধিজীবী’ প্রবন্ধে বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান, ব্রিগেডিয়ার (অব.) এ.এন.এম নূরুজ্জামান, বীরউত্তম, লে. কর্নেল (অব) আবদুর রউফ বীরবিক্রম, সুবেদার খোন্দকার মতিউর রহমান বীরবিক্রম, লে. কর্নেল (অব) মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হিরু বীরপ্রতীক এমপি, নৌসৈনিক সিরাজ উদ্দিন আহমেদ বীর প্রতীক, মো. মোবারক হোসেন বীরপ্রতীক, মো. আবুল বাশার বীরপ্রতীক, মো. মোজাম্মেল হক বীরপ্রতীক, শহীদ প্রফেসর গেয়াউদ্দিন আহমদ, অধ্যাপক সরোজকুমার নাথ অধিকারী, মোহাম্মদ শামসুজ্জামান, মোহাম্মদ ফজলুর রহমান, ড. সাদত আলী প্রমুখের জীবনী আলোচিত হয়েছে।
‘ঐতিহ্যের শেকড়’ নিবন্ধে নরসিংদী জেলার বেলাব উপজেলায় প্রাপ্ত প্রতœনিদর্শনসহ অন্যান্য প্রতœতাত্ত্বিক স্থানের বর্ণনা দেয়া হয়েছে। ‘নরসিংদীর কবি-সাহিত্যিক’ একটি অসম্পূর্ণ রচনা। এই প্রবন্ধে নরসিংদীর প্রয়াত কবি-লেখক-নাট্যকারের সংক্ষিপ্ত পরিচয় তুলে ধরেছেন লেখক। ‘সবুজ পল্লী হতে নরসিংদীর খবর’ স্থানীয়ভাবে প্রকাশিত সংবাদপত্র বিষয়ক নিবন্ধ। সবুজ পল্লী (১৩৩৩ বাং) পত্রিকাটি একটি সমিতির মুখপত্র হিসেবে প্রকাশিত হয়। তারপর প্রকাশিত হয়- ‘অতিক্রম, ‘বৈপ্লবিক সমবায়, ‘বেলাব সমাচার, ‘অগ্নিবীণা, ‘জাগরণ, ‘পুণ্যভমি, ‘খোরাক, ‘নরসিংদীর খবর (আগস্ট, ১৯৯১ সন), জাগরিত বাংলা, দৈনিক উত্তাপ, আজকের চেতনা ইত্যাদি পত্রিকা ও সাময়িকী।
‘নিমের দোতারা আমার বাজে বেসুরো’ নামক ছোটো প্রবন্ধে জীবনের উৎস সন্ধান করতে গিয়ে লোকসংস্কৃতির গুরুত্ব তুলে ধরেছেন তিনি। ‘উয়ারি-বটেশ^র: অন্য এক মহাস্থানগড়’ একটি সারবান প্রবন্ধ। এই প্রবন্ধে উয়ারি-বটেশ^রে প্রাপ্ত প্রাচীন সভ্যতার ইতিহাস বর্ণনা প্রসঙ্গে এই প্রতœতাত্ত্বিক প্রাচীন সভ্যতাকে প্রাচীন ‘মহাস্থানগড়’ নামে আখ্যায়িত করা হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বর্ণনা প্রসঙ্গে নরসিংদী সরকারি কলেজের অবদান বর্ণনা করা হয়েছে ‘মুক্তিযুদ্ধে নরসিংদী কলেজ’ প্রবন্ধে। তাঁদের অনেকের নামই ‘নরসিংদীর শহীদ মুক্তিযোদ্ধা’ গ্রন্থে আছে। বরীন্দ্রমানসে পল্লীভাবনা একটি ব্যতিক্রমী দিক বটে। ‘রবীন্দ্রনাথের পল্লীভাবনা’ প্রবন্ধে পল্লী সম্পর্কে রবীন্দ্রনাথ কী ভেবেছেন তার অতি সংক্ষিপ্ত পরিচিতি প্রদান করা হয়েছে। ‘সৃজনে-মননে : গিরিশ সেন’, ‘হরিচরণ আচার্য্য ও কবিগান’ পূর্বে প্রকাশিত প্রবন্ধের বর্ধিত রূপ মাত্র। ‘কয়েকজন বিরলপ্রজের কথা’ প্রবন্ধে যেসব গুণিজনের বর্ণনা পাই তাঁদের আনেককেই পূর্ববতী গ্রন্থে পেয়েছি। পাকিস্তান আমলের রাজনীতিক ইতিহাস এবং সাহিত্যকর্মের সংক্ষিপ্ত উপস্থাপন হিসেবে রচিত হয়েছে ‘বায়ান্ন থেকে একাত্তর’ লেখাটি।
সরকার আবুল কালাম জীবনের অধিকাংশ সময় ব্যয় করেন নরসিংদী সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের বাঙলা বিষয়ের শিক্ষক হিসেবে যদিও তিনি ছিলেন বাণিজ্য বিভাগের ছাত্র। ‘নরসিংদীর উচ্চশিক্ষা ও নারীশিক্ষার সূতিকাগার নরসিংদী সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়’ প্রবন্ধে লেখক অত্যন্ত নিষ্ঠার সঙ্গে এই বিদ্যাপীঠের ইতিহাস বর্ণনা করেন। ‘চিনিশপুর কালীবাড়ি’ প্রবন্ধে প্রাচীনকালে প্রতিষ্ঠিত কালীমন্দিরের প্রতিষ্ঠাগত ইতিহাস বর্ণনা করেছেন তিনি। ‘তিনটি মিনি রম্য প্রবন্ধ’ রস, লাইন, গোল- শব্দের ব্যাখ্যা সংবলিত রসরচনা।
নরসিংদী জেলার রায়পুরা উপজেলার আঞ্চলিক ভাষা বেশ বৈচিত্র্যপূর্ণ। পশ্চিম রায়পুরার ভাষা নিয়ে রচিত হয়েছে ‘ভাষাপ্রসঙ্গ: পশ্চিম রায়পুরা’ নিবন্ধটি। প্রবন্ধে রায়পুরা এলাকার মানুষের মুখে ব্যবহৃত ভাষা ও শব্দাবলীর নমুনা অর্থসহ উপস্থাপন করা হয়েছে। গ্রন্থের শেষে অর্থসহ নরসিংদীর আঞ্চলিক শব্দের একটি তালিকা যুক্ত করা হয়েছে। ‘ইউনিয়ন ও গ্রাম’ নরসিংদী সদর উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের তালিকা মাত্র। কিংবদন্তী পর্যায়ে- ‘মেঘনাপারের বাঁশিওয়ালা’, ‘বেলায়েত আলী মোল্লা, কালাপানির বাসিন্দা’, ‘চরভাসানিয়ার উপাখ্যান’ লেখা কয়টি লোকাচার ও লোককথা ধরনের রচনা। ‘মেঘনাপারের বাঁশিওয়ালা’ গল্পের সারদা চরিত্রটি বেশ আকর্ষণীয়।
‘ব্রহ্মপুত্র কথা’ লেখাটিতে ¯্রােতশীলা খর¯্রােতা নদীর বর্তমান দৈন্যদশার কারণ ও অবস্থা বর্ণনা করেছেন লেখক। মানুষের অত্যাচারে কীভাবে একটি জীবন্ত নদী মৃত্যুবরণ করে তার বেদনাময় বর্ণনা এই প্রবন্ধ। ‘চট্টলার তিনবন্ধু’-র মূল চরিত্র ড. মনিরুজ্জামান। ‘একটি নিষ্ফলা চিঠি’র প্রধান ব্যক্তি লেখকের প্রিয় ছাত্র ড. আবদুল হাই সিদ্দিক। ‘একজন আলোকিত মানুষের কথা’ প্রবন্ধের প্রধান উপজীব্য ড. এম আসাদুজ্জামান।
‘নরসিংদী চর এলাকার মাটি ও মানুষ’ ২০১৭ সনে প্রকাশিত। প্রকাশক উষারাণী দাস। গ্রন্থস্বত্ব দিলরুবা আক্তার। শ্রুতিলিখনে হাজেরা আক্তার লিপি, সফিকুল ইসলাম, মাহবুবুল আলম। ইতিহাস, ঐতিহ্য, সমাজবীক্ষণ, লোকসংস্কৃতি, ভাষা ইত্যাদি বিষয়ে নানা ধরনের প্রবন্ধ রয়েছে এই গ্রন্থে। চরাঞ্চলের অনেক আজানা বিষয় তিনি উপস্থিত করেছেন গ্রন্থের বিস্তৃত পরিসরে। ‘লেখকের কথা’ অংশে লেখক বলেন, ‘আমি আমার এ ব্যর্থতার দায়িত্বটি নবপ্রজন্মের কাঁধে ছেড়ে দিলাম। আমি বিশ^াস করি ভবিষ্যতে অন্য কোনো সরকার আবুল কালাম সেটি সুন্দর সুচারুভাবে সম্পন্ন করবেন।’ তাঁর এ উক্তি বিশালকে উপস্থাপন করার প্রয়াস থেকে উচ্চারিত। তিনি ব্যর্থ নন। শহর থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন থেকে জীবনের বিচিত্র জীবনবলয় গড়ে ওঠে চর এলাকায়। তাদের ভাষা, জীবনাচার, দৃষ্টি, চাহিদা নাগরিক পরিবেশ থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন। লেখক সেই নিভৃত ও বিচ্ছিন্ন জীবনচক্রের অনাবিষ্কৃত বাণী, বোধ, সুখ-দুঃখের কাহিনী তুলে এনেছেন অপরিসীম যতেœ। এসবের মূল্য অসামান্য। তিনি মুক্তা আহরণকারীর দায়িত্ব পালন করেছেন।
চরের মানুষ ও তাদের জীবনধারার অবিকৃত রূপটি গল্পে, কবিতায়, প্রবাদ-প্রবচনে, গানে বর্ণনায় উপস্থাপিত হয়েছে ‘নরসিংদী চর এলাকার মাটি ও মানুষ’ গ্রন্থে।
গ্রন্থে নরসিংদীর কয়েকজন গুণিব্যক্তির সংক্ষিপ্ত জীবনী উপস্থাপিত হয়েছে- কবি শাসুর রাহমান, চিত্রশিল্পী শাহাবুদ্দিন আহমদ, আ.আ.ম.স আরেফিন সিদ্দিক, প্রফেসর ড. আফিয়া দিল। বর্ণিত হয়েছে নরসিংদীর প্রাচীন ইতিহাসের অজানা বিষয়। তাঁর মতে, মোগল আমলে নরসিংদী ‘মহেশ^রদী’ নামে পরিচিত ছিল, ৬টি পরগণার একটি ছিল মহেশ^রদী। এই পরগণার কার্যালয় ছিল নগর মহেশ^রদী গ্রামে যার প্রমাণ মেলে শিবপুর উপজেলার নগর মহেশ^রদী গ্রামের অবস্থান থেকে। পরে এটি চাকলায় পরিণত হয়। ঈসা খাঁর পর তাঁর অধস্তন পুরুষ শরীফ খাঁর আমলে মহেশ^রদী ‘শরীফপুর’ নাম ধারণ করে বলে তথ্য প্রদান করেন।
গ্রন্থের প্রবন্ধসমূহ- ‘মেঘনাদের জলচ্ছবি’, ‘প্রাচীন যোগাযোগ ব্যবস্থা’, ‘মৎস্য সম্পদ’, ‘রপ্তানিবাণিজ্যের সূচনাপর্ব’, ‘পেশাজীবী সম্প্র্রদায়’, ‘মুসলিম মনীষীর কয়েকজন’, ‘ব্যতিক্রমী পুথি- নূরুল এসলাম’, ‘সাংস্কৃতিক কর্মকা-ের কেন্দ্রবিন্দু বটতলির চর’, ‘ইসলামী লোকসঙ্গীত’, ‘লোকজীবন ও লোকাচার’, ‘লোককাহিনীর জারিসারি’, ‘প্রচলিত প্রবাদ’, ‘বৃষ্টি আবাহন ও বর্ষবরণ’, ‘লোক অনুষ্ঠান ও লোকখেলা’, ‘গ্রাম পর্যালোচনা: রসুলপুর’, ‘সরল মানুষদের সহজ কথা’, ‘নিন্দুকগণ কয়’, ‘প্রাকৃতিক ডাক-একটি বিমূর্ত গল্প’, ‘ভাষাপ্রসঙ্গ: পশ্চিম রায়পুরা’, ‘চর এলাকার লোকশব্দ’, ‘ইউনিয়ন ও গ্রাম’। কিংবদন্তী পর্যায়ে- ‘মেঘনাপারের বাঁশিওয়ালা’, ‘বেলায়েত আলী মোল্লা- কালাপানির বাসিন্দা’, ‘চরভাসানিয়ার উপাখ্যান’, ‘ফকির আতশ আলী শাহ (র.)’- চারটি প্রবন্ধ অন্তর্ভুক্ত। পরিশিষ্ট পর্যায়ে ‘শহীদ বুদ্ধিজীবী’ ও ‘স্মৃতি ’৭১’ স্থান পেয়েছে।
‘মেঘনাদের জলচ্ছবি’ প্রবন্ধে মেঘনানদীর রূপ, সম্পর্কিত অন্যান্য নদী ও চরিত্র বর্ণিত। মেঘনাকে ঘিরে মানুষের জীবনবর্ণনা, মেঘনার অবদান বর্ণনা করা হয়েছে এ প্রবন্ধে। মেঘনাকে নিয়ে রচিত কয়েকটি গানও উৎকলিত হয়েছে। চরকে নিঝুম দ্বীপের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে। ‘প্রাচীন যোগাযোগ ব্যবস্থা’ প্রবন্ধে প্রাচীন-মধ্যযুগের জলপথে কীভাবে বাণিজ্য ও অন্যান্য প্রয়োজনে বিভিন্ন স্থানের মানুষ নরসিংদী তথা মহেশ^রদী আগমন করতো এবং ব্যবসাশেষে ফিরে যেতো তার বর্ণনা পাই। প্রাচীন আমলে বিভিন্ন জিনিসপত্র, বস্তুসামগ্রী আমদানি-রপ্তানি হতো; নরসিংদী বন্দর ছাড়াও ছিল বটেশ^র বন্দর। মেঘনা-ব্রহ্মপুত্র-আড়িয়াল খাঁর জলপথে ব্যবসায়ী শ্রেণী আসা-যাওয়া করতো নৌকাযোগে। বৃটিশ আমলে ভেপু বাজিয়ে আসতো স্টিমার। নরসিংদী থেকে যাত্রীরা নারায়ণগঞ্জ গমন করতো। প্রবন্ধে প্রাচীন নদীপথে যোগাযোগের একটি ভৌগোলিক বর্ণনা প্রদান করা হয়েছে।
‘মৎস্য সম্পদ’ প্রবন্ধে নরসিংদীর নানাজাতের মাছের বর্ণনা দেয়া হয়েছে। ‘রপ্তানিবাণিজ্যের সূচনাপর্ব’ অনুসরণে জানতে পারি এই এলাকার মানুষ পাখির পালক, কুমির-শুশুকের তেল, পুঁটিমাছ, গড়িয়াল-গুঁইসাপ-সাপের চামড়া রপ্তানি করতো বাইরে। রপ্তানি হতো মসলিন কাপড়। মসলিন উৎপাদন ও রপ্তানি করলেও এই দামি কাপড় পরার সামর্থ্য ছিলনা সাধারণ মানুষের। ‘পেশাজীবী সম্প্র্রদায়’ স্থানীয় লোকদের নানাপেশার সংক্ষিপÍ বর্ণনা বিষয়ক একটি লেখা। এ প্রবন্ধে মাত্র ২৯টি ছোটো পেশার উল্লেখ করা হয়েছে। ‘মুসলিম মনীষীর কয়েকজন’ নিবন্ধে ৯জন মুসলিম ব্যক্তির সংক্ষিপ্ত জীবনী বর্ণিত হয়েছে। তাঁরা হচ্ছেন- মাওলানা ইয়াকুব আলী, খাজা লস্কর মোল্লা, সাধক ওসমান গণি শাহ (র.), মুন্সি মোহাম্মদ রিয়াজ উদ্দিন, আবদুল করিম মুন্সি, আসগর আলী মুন্সি, মৌলভী সাদত আলী, মৌলভী বিনন্দ আলী।
‘ব্যতিক্রমী পুথি- নূরুল এসলাম’ রহিম উদ্দিন মুন্সি কর্তৃক রচিত একটি ইসলামী পুথির বিষয় নিয়ে রচিত প্রবন্ধ। পুথি রচনার উদ্দেশ্য, হাদিস ও ফেকাশাস্ত্র অনুসারে মানুষকে ইসলাম ধর্ম বিষয়ে জ্ঞান দান করা।
‘সাংস্কৃতিক কর্মকা-ের কেন্দ্রবিন্দু বটতলির চর’ একটি চরের গুরুত্ব নিয়ে রচিত। চর অঞ্চলের একটি উল্লেখযোগ্য স্থান বটতলির চর। এই চরের সাধারণ মানুষগুলো সংস্কৃতিবিমুখ নয়। এখানে নিয়মিত যাত্রা, নাটক, পুথিপাঠ, পাইক খেলা, নৌকাবাইচ অনুষ্ঠিত হয়। সরকার আবুল কালাম এই লেখায় বটতলির চরের সাংস্কৃতিক অবদানের বর্ণনা দিয়েছেন।
‘ইসলামী লোকসঙ্গীত’ নিবন্ধে চর অঞ্চলে প্রচলিত কয়েকটি ইসলামী লোকসঙ্গীতের পরিচয় প্রদান করা হয়েছে যার গীতিকার জমির আলী খাঁ।
‘লোকজীবন ও লোকাচার’, ‘লোককাহিনী জারিসারি’, ‘প্রচলিত প্রবাদ’, ‘বৃষ্টি আবাহন ও বর্ষবরণ’, ‘লোক অনুষ্ঠান ও লোকখেলা’ – এই কয়টি প্রবন্ধ লোকসাহিত্যের বিষয় নিয়ে রচিত। প্রবন্ধসমূহে গ্রাম্যমানুষের রচিত গান, প্রবাদ; গ্রামে প্রচলিত বিভিন্ন খেলা, আচারানুষ্ঠান ও সংস্কৃতির বর্ণনা দেয়া হয়েছে। কিছু প্রবাদ জ্ঞানের শিক্ষা দেয়-
পীরের লগে দেহা নাই সিন্নি কোতকোতায়
দিনে অইলে হাটুরি, রাইত অইলে সুতা কাটুরি
খাইচ্ছত দোষে মুখ লড়ে, ঝুলনা বাইয়া ফেন পড়ে
না বোঝে টিপের বাও তারে গিয়া টিপটিবাও
মা করে পুত পুত, পুত করে বউবউ’
ভাত দেবার মুরোদ নাই কিল দেবার গোসাই
হস কামের বউ লাউ কুড়াইতে যায়।
‘গ্রাম পর্যালোচনা: রসুলপুর’, রসুলপুর গ্রামের ইতিহাস ও ঐতিহ্য নিয়ে রচিত; রচয়িতা আবদুল ওহাব ভুঁইয়া।
‘সরল মানুষদের সহজ কথা’য় সংলাপের আকারে ছোটো ছোটো নীতি বা জ্ঞানের কথা বলা হয়েছে। ‘নিন্দুকগণ কয়’ নীতিমূলক ছোটো ছোটো গল্পের সমাহার। ‘প্রাকৃতিক ডাক- একটি বিমূর্ত গল্প’ গোলমালি ও সুরুজালিকে নিয়ে লেখা হাসির গল্প। রচনার সরসতা ও বিষয়বৈচিত্র্যে গ্রন্থটি বেশ উৎকর্ষম-িত হয়েছে বলতে হবে।
সরকার আবুল কালামের জীবদ্দশায় প্রকাশিত শেষগ্রন্থ ‘ড. মনিরুজ্জামান কিংবদন্তী-জীবন’ (২০২১) ব্যক্তির জীবভিত্তিক রচনা।
ড. মনিরুজ্জামান লেখক আবুল কালামের গুরু। আদিয়াবাদ ইসলামিয়া উচ্চবিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালে তিনি এই বিদগ্ধ ব্যক্তির সঙ্গে পরিচিত হন। বিভিন্ন লেখায় এই প্রাজ্ঞজনের প্রতি তিনি তাঁর আন্তরিক শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন।
ড. মনিরুজ্জামান আদিয়াবাদের সন্তান। তিনি উচ্চশিক্ষা নিয়ে চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয়ের বাঙলাবিভাগে অধ্যাপনা করেন। কৃতিত্বের জন্য বাংলা একাডেমি পুরস্কার প্রাপ্ত হন ২০১৬ সনে। তিনি একাধারে ভাষাতত্ত্ববিদ, গবেষক, সাহিত্যিক, গীতিকার। নিজগ্রাম আদিয়াবাদে তিনি গড়ে তুলেছেন সাহিত্য-সংস্কৃতি বিষয়ক নানা সংগঠন ও বিদ্যালয়, প্রকাশ করেছেনে পত্রিকা-‘নিসর্গ’ ও ‘নিসর্গবার্তা’। সরকার আবুল কালাম ‘নিসর্গবার্তা’ পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন। এই প্রাজ্ঞব্যক্তি তাঁর গুরুতুল্য, পথপ্রদর্শক।
আদিয়াবাদ ইসলামিয়া হাই স্কুলে দশম শ্রেণিতে পড়ার সময় ড. মনিরুজ্জামান ছাত্রজীবন শেষ করে আদিয়াবাদ স্কুলে আগমন করেন। তখন তাঁর প্রতি গ্রন্থকার বিশেষভাবে আকৃষ্ট হন। পরবর্তীতে সাহিত্য ও জ্ঞানসাধনায় তিনি মনিরুজ্জামানের সংলগ্ন হন। গুরুর প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানাতেই তিনি রচনা করেন, ‘ড. মনিরুজ্জামান কিংবদন্তী-জীবন’ গ্রন্থটি। ড. মনিরুজ্জামানকে লেখা ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের অধ্যাপক মুনীর চৌধুরীর একটি চিরকুট তাঁকে প্রথম প্রভাবিত করে।
সুপ-িত-সাহিত্যিক ড. মনিরুজ্জামানের জীবন, পরিবার, বংশপরিচয় এবং নিজ জীবনের স্মৃতিচারণ বিষয়ক তথ্যই ‘ড. মনিরুজ্জামান কিংবদন্তী-জীবন’ গ্রন্থের মূলবিষয়। গ্রন্থটি তিনটি পর্বে বিভক্ত- মুগ্ধকর আদিয়াবাদ, দারোগাবাড়ির পূর্ব কাহিনী, প্রসঙ্গ মনিরুজ্জামান। চোখের দৃষ্টি সমস্যার কারণে গ্রন্থকার শ্রুতিলেখকের সহায়তায় গ্রন্থটি সমাপ্ত করেন। ছাত্রী মুক্তা আক্তার প্রধানত গ্রন্থ রচনায় শ্রুতিলেখক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে। গ্রন্থের পৃষ্ঠাসংখ্যা- ১৫৯। গুরু ড. মনিরুজ্জামান সম্পর্কে লেখক বলেন, ‘আমার চেতনায় তিনি দিকনির্দেশক। অমিশ্রণ ভাষায় গুরু এবং গুরু। এখনকার ভাষার হয়তো বলা যাবে রোলমডেল।’ (ভূমিকা দ্রষ্টব্য)
সরকার আবুল কালাম সম্পাদিত ‘মহেশ^রদীর ইতিহাস’ একটি গ্রুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক দলিল। নরসিংদীর প্রাচীন নাম ‘সুবর্ণবীথি’ বা ‘মহেশ^রদী’। শ্রীসুরেন্দ্রমোহন পঞ্চতীর্থ বেদান্তশাস্ত্রী ‘মহেশ^রদীর ইতিহাস’ নামে একটি গ্রন্থ প্রণয়ন করেন। ইতিহাসের আকর, হারিয়ে যাওয়া এই সারবান গ্রন্থটি সম্পাদনা করেন তিনি। গ্রন্থটি সম্পাদনা করার ফলে নরসিংদী জেলার প্রাচীন ইতিহাস-ঐতিহ্য ও নামকরণ সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পাওয়া গেলো। নরসিংদী জেলা পরিষদের প্রথম নির্বাচিত চেয়ারম্যান, বিশিষ্ট প্রবীণ রাজনীতিক নেতা এ্যাড, মো. আসাদোজ্জামানের সক্রিয় সহযোগিতায় গ্রন্থটি প্রকাশ পায়। বারভ্ুঁইয়াদের রাজা, মসনদে আলা ঈসা খাঁর আমলে নরসিংদী অঞ্চল মহেশ^রদী পরগণা নামে অভিহিত ছিল বলে জানা যায়। তার আগে এই এলাকার নাম ছিল ‘সুবর্ণবীথি’। বাংলাদেশে সোনার খনি ছিল বলেও তথ্য পাওয়া যায়। তাই হয়তো নাম হয়েছৈ সুবর্ণবীথি। সুবর্ণবীথি থেকে মহেশ^রদী এবং মহেশ^রদীর পর জমিদার নরসিংহের নামানুসারে নাম হয় ‘নরসিংদী’। শ্রীসুরেন্দ্রমোহন পঞ্চতীর্থ রচিত এই বইটি সম্পাদনা করায় নরসিংদীর প্রাচীন ইতিহাসের অনেক তথ্য জানা সম্ভব হয়েছে।
সরকার আবুল কালামের মতে, নরসিংদীর আদি নাম ‘সুবর্ণবীথি’ বা ‘মহেশ^রদী’। তিনি বলেন নরসিংদী নামটি এসেছে জমিদার ‘নরসিংহ’ নাম থেকে। তখন নরসিংদী জেলা সোনার গাঁ পরগণার একটি অঞ্চল হিসেবে অন্তর্ভুক্ত ছিল। এই অঞ্চল শাসন করতো হিন্দু রাজারা। সুলতানী আমলে এই অঞ্চল মুসলমানদের অধীনে আসে। জমিদার ধনপদসিংহের পুত্র নরসিংহের নামানুসারেই নরসিংদী নামকরণ হয় বলে তথ্য পাওয়া যায়। আমি এই তথ্য সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য বলে মনে করি।
তথ্যসূত্রে জানা যায়, হিন্দু জমিদারগণ সোনার গাঁ অঞ্চল শাসন করলেও একসময় তাদের অধস্তন জমিদারগণ ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। তাদের একজন সোলেমান খাঁ। সোলেমান খাঁর পুত্র ঈসা খাঁ সোনার গায়ের অধিপতি ছিলেন। মসনদে আলা ঈসা খাঁর সঙ্গে বাদশা আকবরের সেনাপতি মানসিংহের যুদ্ধ হয়েছিল। মানসিংহ যুদ্ধে পরাজিত হন। বার ভুঁইয়াদের অধিপতি ঈসা খাঁ বাদশা স¤্রাট আকবরের সঙ্গে দেখা করেন মর্মে তথ্য পাওয়া যায়। ঈসা খাঁর মৃত্যুর পর সোনার গাঁ কয়েকটি পরগণায় বিভক্ত হয়। তার একটি ছিল মহেশ^রদী যার বর্তমান নাম ‘নরসিংদী’। পরবর্তীতে নরসিংদী নারায়ণগঞ্জ মহকুমার অন্তর্ভুক্ত হয়। বর্তমানে তা একটি স্বতন্ত্র জেলা।
‘নরসিংদীর গুণিজন’ গ্রন্থে লেখক বলেন, ‘নরসিংদী ছিল সোনারগাঁয়ের অন্তর্গত এলাকা- যার পরবর্তী রূপ পরগণা মহেশ^রদী। ঈশা খাঁর পরবর্তী বংশধরের কর্মচারী ছিলেন মহেশ^র। তিনি নিজ নামে জমিদারী বন্দোবস্ত নিয়ে মহেশ^রদী পরগণা গড়ে তোলেন।’ (লেখকের কথা,নরসিংদীর গুণিজন)
তিনি বাংলাদেশকে প্রাচীন সমতট নামে চিহ্নিত করেন যা প্রাচীন রাজা চন্দ্রগুপ্ত সমতটম-ল নামক গুপ্ত সা¤্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত করেন। এই অঞ্চল পরবর্তীতে ‘সুবর্ণবীথি’ নামে পরিচিত হয়। সুবর্ণবীথি একসময় চন্দ্ররাজ ও বর্মরাজ বংশের শাসনাধীনে ছিল। সোনার গাঁয়ের বারভুঁইয়াদের শাসনামলে এ অঞ্চল ভাটি এলাকা নামে অভিহিত হয়। ঈসা খাঁর মৃত্যুর পর শাসনে আসে পরিবর্তন। তাদের কর্মচারি মহেশ^র নিজনামে জমিদারি বন্দোবস্ত করে নেন। তার নামে সুবর্ণবীথি মহেশ^রদী নাম ধারণ করে। তারপর জমিদার নরসিংহের আমলে মহেশ^রদী হয় ‘নরসিংদী’। মহেশ^র নামের এক রাজকর্মচারী কীভাবে নিজনামে একটি পরগণা লিখিয়ে নিল, তার ভিত্তি কী- তা আজো জানা যায়নি।
সরকার আবুল কালাম মূলত লেখক হিসেবে পরিচিত হলেও তিনি উপন্যাস এবং ছোটোগল্প রচনা দিয়ে সাহিত্যজগতে প্রবেশ করেন। তাঁর প্রথম উপন্যাস ‘অশ্রুভেজা পথ’। কেউ কেউ ‘চমন’ নামক রহস্য-উপন্যাসকে প্রথম গ্রন্থ বলে উল্লেখ করেন। নাটক রচনায়ও তাঁর দক্ষতা প্রমাণিত। তিনি বিভিন্ন নাটকে অভিনয়ও করেন। একটি সাক্ষাৎকারে তিনি ‘শাহজাহান’, ‘সামনের পৃথিবী’, ‘পথের শেষে’ নাটকে প্রত্যক্ষভাবে অভিনয়ে অংশ গ্রহণ করেছেন বলে উল্লেখ করেন। তিনি তিনটি নাটক রচনা করেন- নাটক ‘বর্ণমালা’, ‘একজন ধোপা চাই’, ‘খেলা হলো শেষ’। ‘বর্ণমালা’ নাটকের প্রধান চরিত্র ফেরিওয়ালা সবুজালি ও আধুনিকা নারী নির্বাচিতা সার্থক চরিত্র। অন্যান্য টাইপ চরিত্র- দবির চৌধুরী, হেলাল, আক্কেল আলী। ‘একজন ধোপা চাই’ বলতে নাট্যকার সমাজ ও জাতীয় জীবনে এমন একজন ব্যক্তিকে প্রত্যাশা করেছেন যাঁরা জাতি ও দেশের ময়লা ও আবর্জনা অপসারণ করবে। ‘খেলা হলো শেষ’ নাটকের পাত্রপাত্রীরা সাহিত্যের প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তি। যেমন- কাজী নজরুল ইসলাম, মোজাফফর আহমদ, আব্বাস উদ্দিন, শৈলজানন্দ মুখোপাধ্যায় প্রমুখ।
সরকার আবুল কালামের বেশকিছু রচনা অপ্রকাশিত রয়ে গেছে। আত্মজীবনীমূলক ‘আপনকথা’; ‘নরসিংদীর এ্যালবাম’; ‘নরসিংদীর উপেক্ষিত পঞ্চক’- এখনো প্রকাশিত হয়নি। গ্রন্থতিনটি প্রকাশ পেলে তাঁর সৃষ্টিশৈলি আরো সমৃদ্ধ ও বিচিত্র হতে পারে।
স্কুলশিক্ষক সরকার আবুল কালাম সরকারি দায়িত্ব পালন করেও নিভৃত সাধনা দিয়ে সৃষ্টির ভা-ার গড়েছেন। তাঁর সৃষ্টি বিশাল ও বিচিত্র। এই সৃষ্টিসম্ভারের যথাযথ সংরক্ষণ ও প্রসার হওয়া উচিত। তাঁর প্রতিটি রচনা নিভৃত প্রকোষ্ঠ থেকে উদ্ধার করে আলোর পরিশীলিত কর্মক্ষেত্রে আনা আবশ্যক। তাঁর সৃষ্টি বিষয়ে সরকারি-সেরকারি পর্যায়ে গবেষণার উপযোগী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। যথযথ সম্মানসহ তাঁর রচনাবলীর সংরক্ষণ ও চর্চার মধ্য দিয়েই তাঁর প্রতি প্রকৃত সম্মান প্রদর্শন সম্ভব।
ড. মনিরুজ্জামান তাঁর বিভিন্ন লেখায় সরকার আবুল কালাম সম্পর্কে প্রশংসা করেন। ‘নরসিংদীর শহীদ বুদ্ধিজীবী’ গ্রন্থের ভূমিকায় তিনি বলেন, ‘আগামী প্রজন্ম এই দিশারী দুঃসাহসী লেখকের কাছে চিরদিনই কৃতজ্ঞ হয়ে রইবে।’ মতটি সমর্থনযোগ্য। জাতীয়ভাবে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস প্রণীত হলেও যুদ্ধের এলাকাভিত্তিক ইতিহাস আমাদের জানা নেই। সরকার আবুল কালাম নরসিংদী জেলার সামগ্রিক ইতিহাস ও ঐতিহ্যের বর্ণনা দিয়ে, তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে সেই শূন্যস্থান পূরণ করলেন। জনাব সাবির আহমেদ চৌধুরী যথার্থ বলেছেন, ‘তারা কোনো গোষ্ঠী-গোত্র সম্প্রদায়ের একক সম্পদ নয়- তাদের ঘর আছে দেশে দেশে, তাঁরা বিশ^নাগরিক। তাঁরা কারো কাছে ঋণী নন বিশ^মানব ও মানবতা তাঁদের কাছে ঋণী।’ (‘শিকড়সন্ধানী সরকার আবুল কালাম’, নরসিংদী জেলায় ইসলাম, পৃষ্ঠা-৮)
জাতীয় ইতিহাসের ভিত্তি হচ্ছে আঞ্চলিক ইতিহাস। সরকার আবুল কালাম নরসিংদীর শেকড় সন্ধান করে প্রাথমিক দায়িত্ব পালন করেন। ড. মনিরুজ্জামান বলেন, ‘আঞ্চলিক ইতিহাস ও তার তথ্য-উপাদানের বাস্তবিক কোনও বিকল্প নেই, হতে পারে না। কারণ তার উপর ভিত্তি করেই শুরু হয় জাতীয় ইতিহাস রচনার সত্যিকার পালা। সরকার আবুল কালাম তারই উপাদান বীজ সংগ্রহ করে, তথা সেই ইতিহাস রচনার প্রাথমিক দায়িত্বটি পালন করে পথিকৃতের মর্যাদা লাভ করলেন।’ (প্রফেসর মনিরুজ্জামান, ঐ)
আঞ্চলিক ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে ভিত্তি করে রচিত হয় জাতীয় লোকসংস্কৃতি ও লোকঐতিহ্যের ইমারত। সরকার আবুল কালাম নরসিংদী তথা বাঙালি সংস্কৃতির উৎস সন্ধান ও তার নানারূপের বর্ণনা দিয়েছেন তাঁর বিভিন্ন গ্রন্থে। তিনি যুক্তিনিষ্ঠ কাজটি করেছেন।
‘ভিত্তিকে বাদ দিয়ে শিকড়বিচ্যুত হয়ে শুধু বর্তমানের উন্মাদনাকে নিয়ে যে সাহিত্য একে আমি ‘কবন্ধ’ বলবো। সরকার কালাম আমাদের ভিত্তিতে পা রাখার এবং ঐতিহ্যকে নবরূপায়ণের ও যুগমানসের স্পন্দনে উপস্থাপনের আন্তরিক প্রচেষ্টায় আত্মনিমগ্ন। তাঁর এ প্রচেষ্টাকে আমি ধন্যবাদ জানাচ্ছি। (ড. সফিউদ্দিন আহমদ, পৃষ্ঠা- ৫৪, ‘সরকার আবুল কালাম জীবন ও কমর্’, মোহাম্মদ সাদাত আলী, সাগরদি সাহিত্য পরিষদ।)
আবুল কালামের সমগ্র রচনার অধিকাংশ এলাকা জুড়ে আছে লোকসংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের বিষয়াবলী। আঞ্চলিক সংস্কৃতি, ঐতিহ্য ও ইতিহাসের স্বরূপ উদ্ধারে সারা বাংলাদেশে এতবড়ো কাজ আর কেউ করেননি। তাই তিনি অবিসংবাদিত লোকগবেষক ও লোকসাহিত্য সংগ্রাহক, ইতিহাস ও লোকসন্ধানী। চরময় মেঘনাপারের প্রকৃতিশোভিত, জলবিধৌত সাধারণ জীবনকে দুর্মর প্রয়াসে উপস্থাপন করেছেন তিনি। তাঁর দৃষ্টি গভীর, সুর জীবননিষ্ঠ; অবস্থান মৃত্তিকাসংলগ্ন। মেঘনাপারের জাদুকরী এক বাঁশিওয়ালা সরকার আবুল কালাম। গ্রামের জীবনে, গ্রাম্যপরিম-লে, গ্রাম্য মাটির গভীরে যে সুর ও সঙ্গীত ধ্বনিত তিনি তাঁর বাঁিশর সুরে প্রতিধ্বনিত করেছেন। এই সুর কেবল গ্রামের সাধারণ মানুষের অন্তরেই বাজতে থাকে।
ক্ষণজন্মা মনীষীরা বিশেষ কাল বা স্থানের সীমায় আবদ্ধ থাকেন না। তাঁরা সর্বব্যাপী, কালোত্তীর্ণ। সরকার আবুল কালাম নরসিংদী ভিত্তিক লেখক হলেও কোনো কাল বা স্থানের গ-িতে আবদ্ধ নন। তিনি নরসিংদীর মাটিতে পা রেখে সারাদেশ ও পৃথিবীকে অবলোকন করেছেন। তাঁর হৃদয়ে গভীর দেশপ্রেম সক্রিয় ছিল। তাঁর গ্রন্থের বিচিত্র বিষয় কেবল আঞ্চলিক অর্থে গ্রহণযোগ্য নয়। যে ঐতিহ্য, ইতিহাস এবং গুণিব্যক্তিরা তাঁর চিন্তায় ও মননে স্থান পেয়েছে তারা কালোত্তীর্ণ। তাঁদের জন্মস্থান নরসিংদীতে হলেও তারা সৃষ্টিবৈশিষ্ট্যে সার্বজনীন। এই দৃষ্টিতে সরকার আবুল কালাম শাশ^ত বিষয় ও সীমাহীনতাকে ধারণ করে আছেন।
কীর্তিমান মাত্রই তার সৃষ্টিতে বেঁচে থাকেন। সরকার আবুল কালাম সশরীরে নেই; কিন্তু তাঁর কীর্তি সমুজ্জ্বল। কেবল সৃষ্টির ভেতরেই তাঁকে খুঁজে পাওয়া সম্ভব। তাঁর প্রতিটি গ্রন্থ কালের জোনাকি হয়ে অন্ধকারে পথ দেখাবে। কালের মেঠোপথে তাঁর বাঁশির সুর ধ্বনিত হবে অনন্তকাল।

নরসিংদী
২০.৯.২০২১, সোমবার।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..